সাংবাদিক পরিচয়ে চাঁদাবাজী করতে এসে ধরা খেলো প্রতারক চক্রের একটি সংঘবদ্ধ দল ।

0
1

গাজীপুর,প্রতিনিধিঃ গাড়ী মোবাইল নিয়ে সাংবাদিক পরিচয়ে চাঁদাবাজি করার সময় ২ মহিলাসহ ৪ ব্যক্তি আটক জনতার হাতে

 

সাংবাদিক পরিচয়ে চাঁদাবাজী করতে এসে ধরা খেলো প্রতারক চক্রের একটি সংঘবদ্ধ দল ।
সাংবাদিক পরিচয়ে চাঁদাবাজী করতে এসে ধরা খেলো প্রতারক চক্রের একটি সংঘবদ্ধ দল ।

দাতঁমারা ইউপির শান্তিরহাট এলাকায় সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে এক বেকারীতে চাদাঁবাজি করার সময় ২ মহিলাসহ ৪ জনকে আটক করেছে জনতা। পরে তাদেরকে দাতঁমারা পুলিশ তদন্তকেন্দ্রের নিকট সোপর্দ করা হয়। সোমবার ২৬ এপ্রিল রাত ৮ টায় এ ঘটনা ঘটে।এ সময় চাদাঁবাজিতে ব্যবহৃত একটি প্রাইভেট কার জব্দ করা হয়।

 

পুলিশ ও স্হানীয় সূত্রে জানা গেছে,ময়মনসিংহ গফরগাঁও থানা ধোপঘাট এলাকার মৃত ওয়াজ উদ্দিন সরকারের ছেলে জয়নাল আবেদিন জয় (৪০),গাজীপুর, পুবাইল থানা, ভাধুন এলাকার মিজান সরকারের ছেলে এয়াছিন সরকার প্রকাশ হৃদয় (২৬),জামালপুর, মাধারগন্ডা থানার নয়াপাড়া এলাকার মৃত রহমত উল্যাহ প্রকাশ তাঁরামিয়ার কন্যা পারভিন আকতার লিমা(৩২) এবং গাজীপুর, জয়দেবপুর থানার নাউরুর এলাকার সুরুজ মাতবরের মেয়ে বিলকিস আকতার রুবি(২৫) গতকাল ২৬ এপ্রিল ভোরে নিউ করলা প্রাইভেট কার নং. ঢাকা মেট্টো গ-২৮ – ৯৮২০ নিয়ে গাজীপুর থেকে প্রতারনার উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেয়।

প্রথমে কুমিল্লার একটি ইট ভাটায় তারা ঢুকে বিভিন্ন অনিয়মের সংবাদ প্রকাশের হুমকি দিয়ে চাদাঁ নেয়।এরপর করেরহাট এলাকায় অনুরুপভাবে অপর একটি ইট ভাটায় হানা দিয়ে চাদাঁ নেয়।বিকাল নাগাদ তারা হেয়াকো বিজিবি ক্যাম্পে প্রবেশ করে। সেখানে ফেনী করেরহাট সড়কে একটি কাঠ বোঝাই গাড়ীতে টিবি চেক করার নামে এক হাজার টাকা আদায় করে।

পরবর্তিতে হেয়াকো বেক বাজার নামক স্হানে কাঠ বোঝাই একটি গাড়ী থামিয়ে সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে চাদাঁ নেয় চক্রটি।রাত ৮ টায় তারা শান্তিরহাট বাজারে মোঃ তারেকের মালিকানাধীন মক্কা বেকারিতে প্রবেশ করে।

২ পুরুষ বেকারিতে ঢুকে কাগজপত্র খুজতে থাকে মালিকের কাছে।২ মহিলা সঙ্গী গাড়ীতে বসা ছিল। পুরুষদ্বয় মহিলাদেরকে সিনিয়র সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে তাদের নামে বেকারির মালিকের কাছে মোটা অংকের টাকা দাবি করে।নাহয় পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের হুমকি দেয়া হয়।অগত্যা মালিক তারেক পাশের দোকানদারের কাছে টাকা হাওলাতের জন্য যায়।উক্ত ব্যবসায়ী কিসের জন্য টাকা দরকার বেকারির মালিক তারেকের কাছে জানতে চাইলে সে ঘটনা খুলে বলে।

বিষয়টি সন্দেহজনক হওয়ায় ব্যবসায়ীরা ২ পুরুষকে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে।পরে তারা প্রতারণার বিষয়টি স্বীকার করে।ইতিমধ্যে দাঁতমারা পুলিশ তদন্তকেন্দ্রের নিকট ঘটনাটি পৌছে গেলে তারা ঘটনাস্হল শান্তিরহাট বাজারে উপস্হিত হয়ে ৪ জনকে থানায় নিয়ে আসে।এ সময় ১২ টি মোবাইল ফোন,৩ টি ক্যামেরা,২ টি পাওয়ার ব্যাংক, নগদ টাকা,একটি নিউ করলা প্রাইভেটকারসহ বর্তমানের কথা, রুদ্র বাংলাদেশ নামক পত্রিকার ৩ টি আইডি কার্ড জব্দ করা হয়।

 

দাতঁমারা পুলিশ তদন্তকেন্দ্রের ইনচার্জ আতাউল হক চৌধুরী বলেন, আটককৃতদের বিরুদ্ধে ভূজপুর থানায় মামলা দায়ের শেষে সকালে জেল হাজতে প্রেরণ করা হবে।