নিখোঁজের ৬ মাস পর শিশুর সন্ধান

0
5

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি: দীর্ঘ ছয় মাস ধরে নিখোঁজ ছিলো মোঃ লিখন আহমেদ লিমন।আনুমানিক বয়স১২ বছর।পিতা মোঃ রাজু আহমদ মাতা: মোছা: নারগিস আকতার।

লিখনের পিতা মোঃ রাজু আহমেদ একজন প্রতিবন্ধী এবং মাতা নারগিস আকতার একজন প্রবাসী।জন্ম গ্রহনের কিছুদিন পরে মাতা পেটের টানে সৌদি আরবে পারি দেন।লিখন তার বড় খালা মোছা : রেখা খাতুন এবং খালু মোঃরেজাউল করিম সান্দুরিয়া, তাড়াশ,সিরাজগঞ্জ এর নিকট লালিত পালিত হয়ে আসছিল।

লিখনের খালা মোছা: রেখা খাতুন লিংনকে তাড়াশের মাকড়শোন মাদ্রাসার হেবজখানা শাখায় ভর্তি করে দেন।নিয়মিত পড়ালেখা চলছিল খুব ভাল ভাবেই। হঠাৎ করে লিখনের খালা মাদ্রাসায় গিয়া লিখনের খোঁজখবর নিতে গেলে উক্ত মাদ্রাসা কতৃপক্ষ বলেন গত দুই মাস হলে আপনার ভাগ্নে তো গ্রামে চলে গেছে।এই কথা শোনার পড়ে লিখনের খালা-খালু ভীষণ ভাবে ভেঙ্গে পরেন। লিখনের অনুসন্ধান শুরু হয় চারদিকে। কিন্তু কোথাও কোন অনুসন্ধান না হলে গত ১৫.১০.২০২০ তাড়াশ থানায় মামলা করেন খালা রেখা।

জাতীয় পত্রিকা,লোকাল পত্রিকা,এমন কি দীর্ঘদিন ধরে ডিস লাইনে হারানো বিজ্ঞাপন দেওয়া হয় ছেলেটির অনুসন্ধানের জন্য। হঠাত আপন ফাউন্ডেশন, (লাইটিং আপলাইভ)মুসলিম চ্যারিটি ছেলেটিকে ঢাকা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের আশে পাশে ঘোরাঘুরি করতে দেখে পুলিশের সহায়তায় তাদের ফাউন্ডেশনে আটক রেখে বিভিন্ন প্রযুক্তির মাধ্যমে লিখনের খালাকে অভিহিত করেন যে,উক্ত ছেলেটি আমাদের নিকট জমা আছে,আপনারা সঠিকভাবে তথ্য প্রমানের ভিত্তিতে ছেলেটি কে নিয়ে যান। সংবাদ পেয়ে দৈনিক চলনবিল বার্তা সম্পাদক সেখানে গিয়া লিখনকে শনাক্ত করেন এবং তার অভিভাবকদের ঢাকা এয়ারপোর্টে এর পাশে অবস্থিত “আপন ফাউন্ডেশন ” এ আসতে বলেন।

তাত্ক্ষণিকভাবে ছুটে চলে আসেন লিখনের খালা রেখা খাতুন এবং খালু রেজাউল করিম। সকল আইনি প্রকৃয়ার মাধ্যমে অবশেষে আজ সকাল ১১.৩০ মি. এর দিকে লিখন কে ফিরে পেয়ে অঝোরে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন ।উক্ত এতিম ও অসহায় লিখনের সন্ধান পাওয়ার খবর বিদ্যুৎগতিতে এলায় ছড়িয়ে পড়লে এলাকাবাসী সুখের আনন্দে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। আপন ফাউন্ডেশনের সকল কর্মকর্তা,কর্মচারী সহ সবার জন্য দোয়া সফলতা কামনা করেন লিখনের অভিভাবক সহ এলাকাবাসী।

সময়েরপাতা/রনি/সৌরভ