কবিতার নাম: বাংলা নিয়ে কিছুকথা

0
2

কবিতার নাম: বাংলা নিয়ে কিছুকথা
কবির নাম: হামিদা আব্বাসী

বাংলা নিয়ে কিছুকথাতুমি প্রায়ই দেরি করে আসতে।
আমি বলতাম এত দেরি করলে যে?
তুমি বলতে অনেক কাজ ছিল,
তাই দেরি করে আসতে হয়েছে।

আমার মনে হল তোমার কিছু হয়েছে।
তাই আবার জিজ্ঞেস করলাম।
আর তুমি এতই রেগে গেলে,
মনে হল তুমি অন্য এক মানুষ।

তারপর তুমি বললে দেশে যুদ্ধ চলছে,
আমার অনেক কাজ আছে,
তোমার কাছে থাকলে শুধু হবেনা।
একথা বলেই তুমি আনমনা হয়ে গেছিলে।

তারপর বাকিটা ইতিহাস,
তোমার খোঁজ নেই সাত মাস ধরে।
তোমার প্রতিক্ষায় পথপানে চেয়ে থাকি।
খোঁজ নেই, কোথাও খোজেঁ পাইনা।

সাত মাস পর একদিন খোঁজ পেলাম তোমার,
যুদ্ধমগ্ন এক ব্যক্তির কাছে।
সে বললো তোমাকে একটা ক্যাম্পে দেখেছে।
আমি সেখানে গেলাম তোমার খোঁজে।

তারপর সব তোমার জানা,
আমি আর তুমি আবার একত্র হলাম।
আমাদের ঘরজুড়ে সন্তানেরা এলো।
আমরা একসাথে পাঁচবছর কাটালাম।

হঠাৎ অমাবস্যার রাতে,
তুমি ধরপড়িয়ে উঠলে ঘুম থেকে।
কি হলো তোমার একথা জিজ্ঞেস করলে,
তুমি কোনো কথা বলতে পারোনা,
তুমি আমাকে জড়িয়ে কান্না করছিলে,
তোমার চোখ দিয়ে পানি গড়িয়ে পড়ছিল।

আমি ভয় পেয়ে পাশের ঘরে,
তোমার ভাইদের ডাকতে গেলাম।
তারা এসে তোমাকে হাসপাতালে নিয়ে গেল।
তুমি আমায় অসিয়ত করেছিলে,
যুদ্ধ করেছি দেশ ও জাতির মুক্তির জন্য,
আমাদের সন্তানদের দেশপ্রেম শিক্ষা দিও।

তুমি আর হাসপাতাল থেকে বিছানায় এলেনা।
এখন কবর তোমার আসল বিছানা।
ওগো, তুমি কবরে কেমন আছো?
তোমার সন্তানেরা এখন চাকরি করে।
কেউ পুলিশ, কেউ ব্যারিস্টার হিসেবে।
কেউ রিটায়ার করবে শিক্ষকতা পেশা থেকে।

আর আমি কেমন আছি জানো?
তোমার কাছে যাওয়ার প্রতিক্ষায় আছি,
কেননা তোমার স্বাধীন বাংলা এখন উন্নত,
এখানে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় সব হয়,
বঙ্গবন্ধুর কন্যা এখন দেশের নেতৃত্বে।

যদিও অসাধু এবং ষড়যন্ত্রকারীরা থেমে নেই,
তারা তাদের কাজ করে যাচ্ছে নিরবে,
সুযোগ পেলেই হিংস্রতা প্রকাশ করবে।
স্বাধীনতার পঞ্চাশ বছর হয়ে গেছে,
যদিও তুমি নেই কিন্তু আমি আছি।

তোমার কল্পনার বাংলা কেমন ছিল,
আর এখন বাংলা কেমন হয়েছে,
আমি দেখতে পেয়েছি প্রিয় দেখতে পেয়েছি।

ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ, বাজারে বাজারে ক্লিনিক,
গৃহহীনদের ঘর, রাস্তার উন্নতি,বৈদেশিক মুদ্রা,
ব্যাংক ব্যালেন্স বৃদ্ধি সর্বোপরি পদ্মাসেতু নির্মাণ,
এসব সাহসিকতার সাথে সম্পাদন করেছে।
কে এসব সম্পাদন করেছে জানো?
বঙ্গবন্ধুর জোষ্ঠ কন্যা আমাদের নেত্রী শেখ হাসিনা।

এখন ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়া, বাঙালির লক্ষ্য,
জানো এটি কিভাবে আমাদের দেশের লক্ষ্য হল?
বঙ্গবন্ধুর নাতি প্রথম এই কথা আমাদের শোনায়,
মানুষ শুনে রীতিমতো অবাক হয়,
আর ষড়যন্ত্রকারীরা একথা শুনে ঠাট্টা করে।

সিলেট শহর প্রথম ডিজিটাল শহর হয়েছে,
তুমি অবশ্যই একথা শুনে খুশি হবে,
কেননা এটা তোমার আমার মিলনের শহর।
তাছাড়া বঙ্গবন্ধু -১ স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ,
সাবমেরিন, চল্লিশটি বিশ্ববিদ্যালয়সহ,
বিমানবন্দর, নৌবন্দর অনুল্লেখিত আরো আছে।
সময় পেলে একদিন তোমাকে সবকিছু জানাবো।

রচনাকাল: ২৪/০৩/২০২১
রচনার স্থান: শাহ সিকন্দর আবাসিক এলাকা, সিলেট।