ডিপিএড যোগ্যতা অনুযায়ী শিক্ষকদের ১০ম গ্রেড যৌক্তিক দাবী

0
127

সময়েরপাতা :শিক্ষক মানুষ গড়ার কারিগর। অথচ সেই  মানুষ গড়ার কারিগর প্রাথমিকের সহকারী শিক্ষকরা এখন পর্যন্ত ১৪তম গ্রেডে বেতন পাচ্ছেন যা দিয়ে তাদের নুন আনতে পান্তা ফুরায়।ডিপিএড যোগ্যতা অনুযায়ী শিক্ষকদের ১০ম গ্রেড যৌক্তিক দাবী

সরকার ২০২০ সালের ৯ ফেব্রুয়ারী থেকে ১৩তম গ্রেড ঘোষণা করেছেন কিন্তু শিক্ষকরা এখনও তা পায়নি। আগে সহকারী শিক্ষকদের শিক্ষাগত যোগ্যতা ছিল পুরুষদের স্নাতক এবং নারীদের এইচএসসি। কিন্তু নতুন নীতিমালায় সহকারী শিক্ষকদের নারী-পুরুষ উভয়ের জন্য সর্বনিম্ন ২য় শ্রেণির স্নাতক করা হয়েছে।

স্নাতক পাশ যোগ্যতা অনুযায়ী শিক্ষকরা ২য় শ্রেণির ১০ম গ্রেড পাওয়ার যোগ্য। অথচ স্নাতক+ডিপ্লোমা ইন প্রাইমারি এডুকেশন শিক্ষাগত যোগ্যতা থাকা সত্ত্বেও সহকারী শিক্ষকরা এখনো ৩য় শ্রেণির কর্মচারী। নিম্ন মানের বেতন ভাতার কারণে উচ্চ শিক্ষিতরা শিক্ষকতা পেশায় আসতে চাচ্ছেন না।

পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে শিক্ষকদের ভিআইপি মর্যাদা দেয়া হয় অথচ বাংলাদেশের শিক্ষকরা ৩য় শ্রেণির কর্মচারী। আর একজন ৩য় শ্রেণির কর্মচারী থেকে দেশ ও জাতি কখনো ভালো কিছু আশা করতে পারে না। দেশ এগিয়ে যাচ্ছে কিন্তু শিক্ষকদের ভাগ্যের চাকা ঘুরছে না।

প্রাথমিকের একজন প্রধান শিক্ষককে শ্রেণিকক্ষে পাঠদানের পাশাপাশি সকল প্রশাসনিক কাজ করতে হয়। অথচ তাদের ১১তম গ্রেডে বেতন দেয়া হয়। মাধ্যমিকের একজন সিনিয়র সহকারী শিক্ষক ৯ম গ্রেডে বেতন পান আর প্রধান শিক্ষক ৬ষ্ঠ গ্রেডে বেতন পান।

অথচ প্রাথমিক শিক্ষকদের বেলায় ঠনঠন। ঘরে খাবার না থাকলে সম্মান ধুয়ে পানি পান করলে দিন চলবে না। আজকাল একজন শিক্ষিত মেয়ে প্রাথমিক শিক্ষকদের বিয়ে করতে চায় না এটা ভেবে যে একজন শিক্ষক এই সামান্য বেতনে সংসার চালাবে কেমনে!

শিক্ষকতা সম্মানের পেশা কিন্তু ৩য় শ্রেণির কর্মচারী। এ অভিশাপ থেকে প্রাথমিকের শিক্ষকরা মুক্তি চান। যোগ্যতা অনুযায়ী সহকারী শিক্ষকদের ১০ম গ্রেড, প্রধান শিক্ষকদের ৯ম গ্রেড, সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার ৮ম এবং উপজেলা শিক্ষা অফিসারদের ৭ম গ্রেডে বেতন দেয়া উচিত।

মানসম্মত শিক্ষা পেতে হলে শিক্ষকদের বেতনভাতা অবশ্যই  বৃদ্ধি করতে হবে। যোগ্যতার মাপকাঠি সকল স্তরে সঠিক রাখতে হবে, তবেই দেশ এগিয়ে যাবে।

তাই প্রাথমিকের সহকারী শিক্ষকদের ১০ম গ্রেড এবং প্রধান শিক্ষকদের ৯ম গ্রেডে বেতন প্রদানের পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করছি।