রাজার হাটের চাকিরপাশার বিলের খনন কাজের উদ্বোধন। 

0
0

রাজ-কুমার দেব রাজার হাট উপজেলা প্রতিনিধিঃ- মঙ্গলবার বিকেল ৪ঃ০০ঘটিকায় রাজারহাটে বহুল আলোচিত চাকিরপশার বিলের খনন কাজের উদ্বোধন করেন রাজারহাট উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জাহিদ ইকবাল সোহরাওয়ার্দী বাপ্পী।

রাজার হাটের চাকিরপাশার বিলের খনন কাজের উদ্বোধন। 
রাজার হাটের চাকিরপাশার বিলের খনন কাজের উদ্বোধন। 

সরোজমিনে গিয়ে জানা যায় রিভারাইন পিপলস ও গন কমিটির দীর্ঘ চার বছর ধরে চাকিরপশার বিলের অবৈধ দখলদারমুক্ত ও খাল খননের দাবীতে আন্দোলন করে আসছে।

তাদের দাবীর প্রেক্ষিতে রাজারহাট উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জাহিদ সোহরাওয়ার্দী বাপ্পী বি আর ডি সি কৃষি অধিদপ্তর বরাবর আবেদন করেন।

কৃষি অধিদপ্তর উপজেলা চেয়ারম্যানের আবেদনের প্রেক্ষিতে ১৬ লক্ষ টাকা ব্যয়ে ২ কিঃমি নদী খননের কাজ আনছারী কন্সট্রাশন ও রাফি বিল্ডার কে টেন্ডারের মাধ্যমে প্রদান করেন।আনছারী কন্সট্রাকশনের ম্যানেজার বলেন আমরা রাফি বিল্ডারের সাথে যৌথভাবে চাকিরপশার নদীর ইটাকুড়ি হতে নাফাডাঙ্গা ব্রিজ পর্যন্ত দুই কিঃমিঃ খনন কাজ শুরু করলাম,

পর্যায়ক্রমে চাকিরপশার বিল খনন করা হবে।

চাকিরপশার নদীর দখলমুক্ত ও খনন আন্দোলনের নদী রক্ষা কমিটির সম্ননয়ক ড.তুহিন ওয়াদুদ বলেন চাকিরপশার বিলের এই জলাবদ্ধতা দীর্ঘদিনের সমস্যা আমরা প্রায় চার বছর থেকে আন্দোলন করে আসছি অবশেষে আজ সফল।চাকিরপশার নদীর খনন কাজের মধ্য দিয়ে এই এলাকার মানুষের স্বপ্ন আজ পূরন হতে চলেছে।

তিনি আরও বলেন চাকিরপশার বিলের স্বাভাবিক যে স্রোতের গতিধারা ছিলো তা দখলদার বাহিনী পুকুর খনন করে ও নদী সংলগ্ন ব্রিজের সামনে ঘের দিয়ে স্রোতের সেই গতি প্রবাহ বন্ধ করে দিয়েছিলো,যার ফলে অতি বৃষ্টির ফলে হাজার হাজার একর জমির ফসল তলিয়ে যেত।

কৃষকদের বিপুল পরিমান ফসল নষ্টের সম্মুখীন হতে হতো,

কিন্তু আজকের এই খনন কাজের উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে কৃষকদের সেই দীর্ঘদিনের চাওয়া পাওয়া পুরন হতে যাচ্ছে।এর চেয়ে খুশির আর কি হতে পারে।

বিআরডিসির নির্বাহী প্রকৌশলী হোসাইন মুহাম্মদ আলতাব (লালমনিরহাট) বলেন রাজারহাট উপজেলা পরিষদ বি আর ডি সির মাধ্যমে কৃষি অধিদপ্তরে আবেদন করলে ২কিঃমিঃ চাকিরপশার নদী খননের জন্য ১৬ লক্ষ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়।

রাজারহাট উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জাহিদ সোহরাওয়ার্দী বাপ্পী বলেন রাজারহাট উপজেলা একটি কৃষি বান্ধব উপজেলা,

জলাবন্ধতা একটি বড় সমস্যা এই বিল খননের মধ্য দিয়ে কৃষকদের সেই জলাবদ্ধতা দূর হবে।

আশা করি বেশি পরিমাণ ধান উৎপাদন হবে যা জাতীয় অর্থনীতিতে অবদান রাখবে।এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আশিকুর ইসলাম মন্ডল সাবু,উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ন আহবায়ক সুমন কুমার রায়,সাংবাদিকবৃন্দ সহ শতাধিক এলাকাবাসী।