তাড়াশ উপজেলা আওয়ামিলীগের নবদিগন্তের নাম গাজী ম,ম,আমজাদ হোসেন মিলন এবং শ্রী সঞ্জিত কমকার

0
2

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি, এম,রবিউল করিম রনি:

তাড়াশ উপজেলা আওয়ামিলীগ (সিরাজগঞ্জ) এর নবনির্বাচিত সভাপতি গাজী ম,ম,আমজাদ হোসেন মিলন এবং বিপ্লবী সাধারণ সম্পাদক শ্রী সঞ্জিত কুমার কর্মকার এখন তাড়াশবাসীর আইডিয়াল আইকোন হিসাবে সর্বস্তরের নেতাকর্মী এবং সাধারণ মানুষের মাঝে পরিচিতি লাভ করতে সক্ষম হয়েছেন।

দীর্ঘদিন যাবৎ তাড়াশ উপজেলা আওয়ামিলীগ সহ একাধিক অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের মাঝে জল্পনা ও কল্পনার ঝর উঠে আসছিল যে, প্রতিটি সংগঠনের মাঝে ক্ষমতার অপব্যবহার করে আসছিল দলের তৃনমুল থেকে শুরু করে জেলা আওয়ামিলীগ যোগদান করা বেশকিছু নবাগত নেতাকর্মী।
নির্ভর সুত্রমতে জানা যায়, বাংলাদেশের গনতন্ত্রের মানষকন্যা, সফল রাষ্ট্র নায়ক,দেশদরদী,অসহায় ও বঞ্চিত জনগণের মমতাময়ী মাতা বাংলাদেশ আওয়ামিলীগের সভাপতি জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশ মতে,সারা বাংলায় ত্যাগী ও প্রকৃত বঙ্গবন্ধুর সৈনিকদের খুজে বেড় করে পুনরায় দলে সম্পৃক্ত করে দলকে শক্তিশালী করে গড়ে তোলার নির্দেশ প্রদান করেন। পাশাপাশি দলে যোগদান করা নবাগত আওয়ামিলীগদের প্রতি সতর্ক থাকার আহবান জানান এবং তাদেরকে দলের কোন গুরুত্বপূর্ণ পদে না রাখার আহবান জানান।
সাধারণ জনতা মনে করপন যে,বঙ্গবন্ধুর কন্যা কখনো কোনদিনই অন্যায়ের সাথে আপোষ করেন নাই এবং কোন দিন আপোষ করতে পারে না এটা সাধারণ জনগণের জানা।
সাধারণ মানুষ জননেত্রী শেখ হাসিনার রাজনৈতিক দুরদর্শিতা দেখে সত্যিকারেই মুগ্ধ হয়েছেন,তিনি বিগত দিনে দল থেকে অনেক বড় বড় রাঘব বোয়ালদের কে দল থেকে ছুঁরে ফেলে দিয়েছেন তাদের অপকর্ম আর দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত থাকার কারনে।

যে কারনে জননেত্রী শেখ হাসিনা এখন বাংলাদেশের মমতাময়ী মাতা।তিনি সব জানেন এবং সকলেরই খোঁজ খবর সঠিক ভাবেই রাখেন।

স্থানীয় নির্বাচনে জাতীয় প্রতীক না রাখার দাবি জানিয়েছেন তৃনমুল পর্যায়ের রাজনৈতিক বিশ্লেষকগন

তাড়াশ উপজেলার একজন জনৈক ও প্রবীন রাজনীতিবিদ বলেন,তাড়াশ উপজেলার মানুষ এখন শান্তির বারতার সুগন্ধ খুজে পাচ্ছে,তিনি আরো বলেন,বাংলাদেশ আওয়ামিলীগ একটি বড় প্লাটফর্ম সেখানে ভাল নেতার পাশাপাশি কিছু খারপ নেতা থাকতেই পাড়ে।তিনি আরো বলেন,বিগত দিনে তাড়াশ উপজেলা আওয়ামিলীগ সহ সকল অঙ্গসংগঠনেই সজন প্রিতি ও লবিং গ্রুপিং ছিল।কারন জানতে চাইলে বলেন,তাড়াশের রাজনীতিতে অনেক অনভিজ্ঞ নেতার সৃষ্টি হয়েছে আবার কিছু গুরুত্বপূর্ণ পদে অনেক ভাল ও স্বচ্ছ নেতার সৃষ্টি হয়েছেন।

তিনি বিগত দিনের উদাহরণ দিয়ে বলেন,অতীতে ও অনেক ভাল ও জনপ্রিয় নেতা ছিল এখনো আছে কিন্তু নেতার নেতৃত্ব ও অর্জন বিসর্জন হয়েছে তাদের চামচাদের আচার আচরনের ও কু চরিত্রের কারনে।
তিনি বলেন, একজন নেতার নেতৃত্বের বিস্তৃতি লাভে বাধার সৃষ্টি হয় তার সঙ্গের কিছু নেতাকর্মীদের কারনে।

একজন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ বলেন, আগামীর তাড়াশ হবে শৃঙ্খলাবোধ এবং উন্নয়নের রোলমডেল।কারন যারা তাড়াশ উপজেলা আওয়ামিলীগ থেকে শুরু করে ছাত্রলীগের সুনাম অর্জনে দিনের পর দিন শ্রম দিয়েছেন,তাড়াই আবার তাড়াশ বাসীর অভিভাবকের দায়িত্ব পেয়েছেন।