নাশকতার ঘটনায় সাত মামলায় আসামী সাড়ে আট হাজার

0
2

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি: ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গত শনি ও রোববারের নারকীয় ধ্বংসলীলার ঘটনায় গতকাল মঙ্গলবার (৩০ মার্চ) পর্যন্ত থানায় মোট ৭টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। নাশকতার ঘটনায় সাত মামলায় আসামী সাড়ে আট হাজার

এর মধ্যে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানায় পাঁচটি ও আশুগঞ্জ থানায় পৃথক দুটি মামলা দায়ের করা হয়। এসব মামলায় এখন পর্যন্ত ১৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

দায়েরকৃত ৭টি মামলার মধ্যে পুলিশ সুপারের কার্যালয় ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনায় ২টি, আনসার-ভিডিপির কার্যালয়ে হামলা ও অগ্নিসংযোগের ঘটনায় ১টি, ইউনির্ভাসিটি অফ ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হামলার ঘটনায় ১টি এবং শহরের মেড্ডা পীরবাড়ি এলাকায় হামলা ভাংচুরের ঘটনায় ১টি এবং আশুগঞ্জ টোলপ্লাজায় হামলার ঘটনায় পৃথক দুটি মামলা দায়ের করা হয়।

মোট ৭টি মামলায় অজ্ঞাত প্রায় সাড়ে ৮ হাজার লোককে আসামি করা হয়েছে। তবে আশ্চর্যজনকভাবে হেফাজতে ইসলামের কাউকে এসকল মামলায় আসামী করা হয় নি।

পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে হামলা ও অগ্নিসংযোগের ঘটনায় গত শনিবার (২৭ মার্চ) এসআই মিজানুর রহমান বাদী হয়ে পৃথক দুটি মামলা দায়ের করেছেন।

(মামলা নং-৪১ ও ৪২, তারিখঃ-২৭-০৩-২১ইং)। মামলা দুটিতে অজ্ঞাতনামা চার থেকে পাঁচ হাজার লোককে আসামি করা হয়েছে।

আনসার-ভিডিপির কার্যালয় ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনায় আনসারের সার্কেল অ্যাডজুটেন্ট শাহাদাত হোসেন গত রবিবার (২৮ মার্চ) বাদী হয়ে ১টি মামলা দায়ের করেন (মামলা নং-৪৫ তারিখঃ-২৮-০৩-২১ইং)।

এই মামলায় অজ্ঞাতনামা ৪ থেকে ৫শ’ লোককে আসামি করা হয়েছে। একই দিন ইউনিভার্সিটি অফ ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হামলার ঘটনায় প্রতিষ্ঠানটির রেজিষ্ট্রার খন্দকার এহসান হাবিব বাদি হয়ে আরো একটি মামলা দায়ের করেন। এই মামলায় অজ্ঞাতনামা আরো ২ থেকে ৩শ’ লোককে আসামি করা হয়েছে।

এছাড়া পৌর এলাকার পশ্চিম মেড্ডা পীরবাড়ি এলাকায় পুলিশের সঙ্গে হেফাজতকর্মীদের সংঘর্ষের ঘটনায় পুলিশের এসআই মোসলেম উদ্দিন বাদী হয়ে পৃথক একটি মামলা দায়ের করেছেন। এ মামলায় ১৪ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আরো প্রায় এক থেকে দেড় হাজার লোককে আসামি করা হয়েছে।

এদিকে আশুগঞ্জ টোলপ্লাজায় হামলা-ভাঙচুরের ঘটনায় আশুগঞ্জ হাইওয়ে সার্জেন্ট জহিরুল হক বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা ৪ থেকে ৫শ’ লোকের বিরুদ্ধে একটি এবং আশুগঞ্জ টোলপ্লাজার দায়িত্বপ্রাপ্ত জয়নাল আবেদীন অজ্ঞাতনামা ৪ থেকে ৫শ’ লোকের বিরুদ্ধে অপর মামলাটি দায়ের করেন।

এদিকে, গত শুক্রবার থেকে রোববার পর্যন্ত আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সাথে সংঘর্ষ চলাকালে ১২ বিক্ষোভকারী নিহত এবং অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ও প্রশাসন) রইছ উদ্দিন সহ পুলিশের ৮০ জন সদস্য আহত হয়েছেন বলে পুলিশ প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে।

সার্বিক বিষয় নিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ও প্রশাসন) মো. রইছ উদ্দিন বলেন, তিনদিনের সংঘর্ষের ঘটনায় ১২ জনের মৃত্যু হয়েছে। সংঘর্ষের সময় তিনি সহ পুলিশের আরো ৮০ জন সদস্য আহত হয়েছেন বলে নিশ্চিত করেন।

এ ব্যাপারে সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আবদুর রহিম বলেন, হামলা-ভাঙচুরের ঘটনায় এ পর্যন্ত সদর থানায় ৫টি মামলা হয়েছে। আরও মামলার প্রস্তুতি চলছে। এ পর্যন্ত ১৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

অপরদিকে আশুগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জাবেদ মাহমুদ বলেন, হামলা-ভাঙচুরের ঘটনায় মঙ্গলবার সকালে আশুগঞ্জ থানায় দুটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।