বরগুনার বেতাগীতে আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মধ্যেই বিদ্রোহীর আশঙ্কায়

0
0

বেতাগী প্রতিনিধি, বরগুনা:  বরগুনার বেতাগীতে আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিদ্রোহীর আশঙ্কায় আওয়ামীলীগ থেকে মনোনীত নৌকা মার্কার প্রার্থীরা। আসন্ন ইউপি নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী দেবে না বিএনপি। তবে এই সুযোগটি খুব একটা কাজে লাগাতে পারবে না আওয়ামী লীগ। নির্বাচন

কারণ প্রতিটি ইউনিয়নেই চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের একাধিক বিদ্রোহী প্রার্থী থাকবেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। বেতাগী উপজেলার ৭টি ইউনিয়নে নির্বাচনী তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে। উপজেলার বিবিচিনি, বেতাগী (সদর), হোসনাবাদ, মোকামিয়া, বুড়ামজুমদার, কাজিরাবাদ ও সরষিামুড়ি ইউনিয়নে আগামী ১১ এপ্রিল ভোটগ্রহন হবে। এসব ইউনিয়নে মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ তারিখ ১৮ মার্চ, আর প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ২৪ মার্চ। ইতোমধ্যে আওয়ামীলীগ উপজেলার ৭টি ইউনিয়নেই দলীয়ভাবে প্রার্থী মনোনীত করেছেন বিবিচিনি ইউনিয়নে নওয়াব হোসেন নয়ন, বেতাগী(সদর) মো.হুমায়ন কবির খলিফা, হোসনাবাদে খলিলুর রহমান, মোকামিয়া গাজী জালাল আহম্মেদ, বুড়ামজুমদারে সৈয়দ গোলাম রব,কাজিরাবাদে মোশাররফ হোসেন, সরিষামুড়িতে ইমাম হাসান শিপন জোমাদ্দার। তবে এই ৭টি ইউনিয়নের ৬টিতে বর্তমান চেয়ারম্যানদেরই আ’লীগ থেকে মনোনীত করা হয়েছে। শুধুমাত্র মোকামিয়া ইউনিয়নে নতুন প্রার্থীকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে।

ফলে প্রত্যেক ইউনিয়নেই একাধিক বিদ্রোহী প্রার্থী সহ স্বতন্ত্র প্রার্থীদের নিবার্চনে অংশগ্রহনের আশঙ্কা রয়েছে বলে এলাকায় গুঞ্জণ শুরু হয়েছে। বেতাগী উপজেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক মো. হুমায়ন কবির বলেন, ঘোষিত সাতটি ইউনিয়নে দলীয় প্রার্থী মনোনয়নের জন্য মোট ৩৪টি ফরম বিক্রি হয়েছে। এর মধ্যে কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগ সাতজনকে মনোনয়ন দিয়েছেন। জানা যায়, বেতাগীর প্রত্যেকটি ইউনিয়নেই ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের একাধিক প্রার্থী এখন পর্যন্ত নির্বাচনে অংশগ্রহন করার জন্য মাঠে রয়েছেন। এদিকে মনোনয়ন ঘোষণার পরপরই আওয়ামী লীগের একাধিক প্রার্থী সভা-সমাবেশ, উঠান বৈঠক, মোটরসাইকেল মহড়াসহ বিভিন্ন শোডাউনে ব্যাস্ত সময় কাটাচ্ছেন। অন্যদিকে বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটি স্থানীয় সরকার নির্বাচনে অংশ না নেওয়ায় ঘোষণা দেওয়ায় ইচ্ছা থাকলেও দলের সিদ্ধান্তের বাইরে যেতে পারছেন না কয়েকজন সম্ভাব্য প্রার্থী।

বেতাগীর মোকামিয়া ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান প্রার্থী ও ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের সভাপতি গাজী জালাল আহম্মেদ বলেন, ‘আমরা আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় ও উপজেলা কমিটির সিদ্ধান্ত অনুসারে কাজ করব। বিএনপি প্রতিক নিয়ে মাঠে না থাকলেও কৌশলে নৌকার প্রার্থীদের বিপক্ষে কাজ করতে পারে বলে আমি মনে করি। তাই এবারের নির্বাচন বিগত দিনের নির্বাচনের চেয়ে আরো বেশি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে।’ এদিকে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন বেতাগী উপজেলা বিএনপির বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা।

এর মধ্যে উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান সিনিয়র যুগ্ন আহবায়ক মো. জাকির হোসাইন বলেন, ‘কেন্দ্রীয় বিএনপি এ ব্যাপারে আমাদের কাছে কোনো ধরনের নির্দেশনা দেয়নি। তাই আপাতত আমরা এ নিয়ে ভাবছি না।

আমরা যতটুকু জানি বিএনপি নির্বাচনে অংশ নিবে না।তবে কেউ স্বতন্ত্রভাবে নির্বাচনে অংশগ্রহন করলে তার ব্যাক্তিগত ব্যাপার।