শ্রীপুরে রাতের আঁধারে ব্যবসায়ীর কোটি টাকা মূল্যের জমি দখলের অভিযোগ, আহত ৩

0
33

গাজীপুর,প্রতিনিধি:

গাজীপুরের শ্রীপুরে ব্যবসায়ী রিয়াজ উদ্দিন গংয়ের এক কোটি টাকা মূল্যের (১.৯০ শতাংশ) জমি দখলে করে নিয়েছে প্রতিপক্ষ বেলাল সরকার গং। এসময় জমি দখলে বাধা দিলে ব্যবসায়ী পরিবারের তিন সদস্যকে পিটিয়ে আহত করে দখলবাজরা। সোমবার (২৯ এপ্রিল) দিবাগত রাত ৩ টায় শ্রীপুরের শিল্পাঞ্চল হিসেবে পরিচিত ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের (মাওনা চৌরাস্তা) কনিকা স্টুডিওর পাশে জমি দখলের এমন ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেন, উপজেলার তেলিহাটির মুলাইদ গ্রামের মৃত আলিম উদ্দিনের ছেলে ব্যবসায়ী রিয়াজ উদ্দিন (৫৭), তার ভাই তাজ উদ্দিন ও ব্যবসায়ীর ছেলে শরীফ উদ্দিন (২৪)।পরে তাদের শ্রীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে জরুরী বিভাগের চিকিৎসক প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে তাদেরকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করে। বর্তমানে তারা ওই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এ ঘটনায় ব্যবসায়ী রিয়াজ উদ্দিন বাদী হয়ে এক জনের নাম উল্লেকসহ অজ্ঞাতদের অভিযুক্ত করে শ্রীপুর থানায় লিখিত অভিযোগ করে ।

থানায় দায়ের করা লিখিত অভিযোগে ভুক্তভোগী ব্যবসায়ী রিয়াজ উদ্দিন জানান, দীর্ঘ প্রায় ৫ যুগ যাবত পৈত্রিক ও ক্রয় সূত্রে মালিক হয়ে ভোগ দখল করে আসছেন। ঘটনার দিন রাতে বেলাল সরকারের নেতৃত্বে অজ্ঞাত লোকজন জমি দখলের চেষ্টা করে। এসময় বাধা দিলে প্রতিপক্ষের লোকজন তাদেরকে দেশীয় অস্ত্র ও লাঠি দিয়ে পিটিয়ে আহত করে। জমি দখলে শ্রীপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) সাখাওয়াত হোসেনের প্রত্যক্ষ সহযোগীতা রয়েছে বলে তিনি সাংবাদিকদের কাছে স্বীকার করেন।

গত কয়েকদিন যাবত একই গ্রামের মৃত কাইল্লার ছেলে বেলাল সরকার ওই জমির কিছু অংশ অন্যায়ভাবে তার মালিকানা দাবি করে আসছিলেন। বিষয়টি স্থানীয় ইউপি সদস্য মোবারক হোসেন মুরাদ সমাধানের দায়িত্ব নেয়ার পর ওই রাতে জবরদখলের ঘটনা ঘটে।

অভিযুক্ত বেলাল সরকার জানান,তিনি কারো জমি দখল করে নাই। তিনি আরও বলেন, দীর্ঘদিন যাবত আমার জমি বেদখল ছিলো। আমি ওই জমি উদ্ধার করে দখলে নিয়েছি।

তেলিহাটি ইউপি সদস্য মোবারক হোসেন মুরাদ জানান, আমার বিরুদ্ধে অভিযোগটি সঠিক নয়। একটি মহল আমার সুনাম ও ভাবমূর্তি নষ্ট করার জন্য ষড়যন্ত্র করছে।

শ্রীপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) সাখাওয়াত হোসেন তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, অভিযোগটি সঠিক নয়। আমি কোনো পক্ষকেই চিনি না। ঘটনাস্থলেও আমি যাইনি। জরুরী সেবা ৯৯৯ এর মাধ্যমে খবর পেয়ে আমি ঘটনাস্থলে শ্রীপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ইসমাইল হোসেনকে পাঠায়। এসময় সে উভয় পক্ষকে ঘটনাস্থল থেকে সরিয়ে দেন। ভুক্তভোগী অভিযোগ দিলে অমরা বিষয়টি সুষ্ঠ তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করব।