রাজারহাটে স্কুল ফিডিংয়ের বিস্কুট পাচ্ছে না শিক্ষর্থীরা ঝড়ে পরার আশংকা

0
1

রাজ-কুমার দেব,রাজারহাট উপজেলা প্রতিনিধিঃ

রাজারহাটে স্কুল ফিডিংয়ের বিস্কুট পাচ্ছে না প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রায় ২০ হাজার শিক্ষর্থী,ঝড়ে পরার আশংকায় চিন্তিত অবিভাবক ও শিক্ষকরা।

স্কুল ফিডিংয়ের বিস্কুট পাচ্ছে না রাজার হাট উপজেলার ১২৪ টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রায় ২০ হাজার শিক্ষর্থী। এ বিদ্যালয় গুলোতে কমে গেছে শিক্ষার্থী উপস্থিতির হার। এ অবস্থায় দরিদ্র এলাকার শিক্ষার্থীদের পুষ্টির চাহিদা মেটাতে দ্রুত স্কুল ফিডিং কার্যক্রম চালু করার দাবি জানিয়েছেন শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অবিভাবকরা।
জানা গেছে কুড়িগ্রামের তিস্তা ও ধরলা নদীবেষ্টিত দরিদ্রতম উপজেলা রাজার হাট, এই উপজেলায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সংখ্যা প্রায় ১২৪ টি।

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের শিক্ষার হার এবং শিক্ষার্থীদের পুষ্টির চাহিদা পূরণ করতে ২০০২ সালে স্কুল ফিডিং নামে কার্যক্রম চালু করা হয়।
এ কার্যক্রমের আওতায় টিফিনের সময় প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে ৭৫ গ্রাম ওজনের এক প্যাকেট উচ্চমান পুষ্টিসমৃদ্ধ বিস্কুট দেওয়া হতো,তাবে হঠাৎ করে স্কুল ফিডিং কার্যক্রম বন্ধ করায় স্কুলে শিক্ষার্থীর হার কমে গেছে।

দেশে করোনা পরিস্থিতিতে দের বছর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকার পর গত ১২ সেপ্টেম্বর থেকে খুলে দেওয়া হয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান,
তবে শিক্ষকরা বলছেন প্রতিষ্ঠান খোলার প্রথম দিকে শিক্ষার্থীর হার বেশি থাকলেও এখন কমে যাচ্ছে, এ অবস্থায় দ্রুত সময়ের মধ্যে স্কুল ফিডিং চালু না করা হলে শিক্ষার্থীর উপস্থিতির হার কমার পাশাপাশি ঝড়ে পরার হার বেড়ে যাবে।

এব্যাপারে আমাদেরকে রাজারহাট উপজেলা শিক্ষা অফিসার নজরুল ইসলাম বলেন দ্রুত স্কুল ফিডিংয়ের কার্যক্রম চালু করার বিষয়ে জেলা কমিটির মাসিক সভায় আলোচনা করেছি।