বৃদ্ধা মাকে পিটিয়ে হাসপাতালে পাঠালেন ছেলে

0
1

প্রদীপ কুমার রায়, লালমনিরহাট জেলা প্রতিনিধি: লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলায় ছেলের লাঠির আঘাতে গুরত্বর আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি আছেন এক অসহায় বৃদ্ধা মা। ঝগড়া থামাতে গিয়ে ছেলে ও ছেলের বউয়ের হাতে লাঞ্চিত হন অসহায় পিতা রফিকুল ইসলাম।

মঙ্গলবার (১৯ এপ্রিল) দুপুরে বিষয়টি নিশ্চিত করেন হাতীবান্ধা থানার অফিসার্স ইনচার্জ এরশাদুল আলম।

এ ঘটনায় রফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে ছেলে রশিদুল ইসলাম, ছেলের বউ বেবি বেগমসহ ৩জনের নামে থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার টিএনটি পাড়া এলাকায় বৃদ্ধ বাবা-মায়ের সাথে স্ত্রী-পুত্র নিয়ে একই পরিবারে বসবাস করেন রশিদুল ইসলাম। এমতাবস্থায় গতকাল সকাল ৯টার দিকে পারিবারিক বিষয় নিয়ে তাদের ঝগড়াঝাটি হয়। এর এক পর্যায়ে রশিদুল ও তার স্ত্রী উত্তেজিত হয়ে বৃদ্ধা মাকে বাঁশের লাঠি দিয়ে এলোপাতাড়ি ভাবে মারপিট করে। এতে বৃদ্ধা রশিদা বেগম গুরত্বর আহত হয়। এ ঘটনা দেখে বাবা রফিকুল ইসলাম ঝগড়া থামাতে গিয়ে তার ছেলে ও ছেলের বউয়ের হাতে লাঞ্চিত হয়। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতা রফিকুল ইসলাম তার বৃদ্ধা স্ত্রী রশিদা বেগমকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে ভর্তি করে দেন। যার রেজি নং- ১৯৩৬। এ ঘটনা ঐ দিন রাতে রফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে তার ছেলে, ছেলের বউসহ ৩জনের নামে থানায় লিখিত অভিযোগ দেন।

এ বিষয়ে কথা হলে রফিকুল ইসলাম বলেন, রশিদুল ইসলাম তার বউসহ প্রায়ই তাদেরকে মারধোর করেন। রশিদুলের এক ছেলে সেনাবাহিনী ও এক মেয়ে পুলিশে চাকরি করে আর সেই ক্ষমতা ও টাকার জোরে তারা কাউকেই মানেনা। ছেলে ও ছেলের বউয়ের উপযুক্ত বিচার চান অসহায় পিতা রফিকুল ইসলাম।

রশিদুলের স্ত্রী বেবি বেগম শ্বশুর শ্বাশুড়িকে মারধোরের অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, তার শ্বশুরই তাকে মারধোর করেছে।

হাতীবান্ধা থানার অফিসার্স ইনচার্জ এরশাদুল আলম বলেন, এ বিষয়ে একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত পূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।