গজারিয়ায় বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেসা মুজিবের জন্মদিন উদযাপন.

0
5

খায়রুল ইসলাম হৃদয়, মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধিঃ

মুন্সিগঞ্জের গজারিয়া আওয়ামীলীগ এবং অঙ্গসংগঠনের উদ্যোগে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধ শেখ মুজিবুর রহমানের সহ ধর্মিনী বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব এর শুভ জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে বিশেষ দোয়া ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

আজ ৮ অগাস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সহধর্মিনী বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের ৯২ তম জন্মবার্ষিকী। ১৯৩০ সালের এই দিনে গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব। শুভ জন্মদিন বঙ্গমাতা।

গজারিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ উপজেলা অডিটোরিয়াম হল সহ বিভিন্ন কমিটি তাদের অফিস সহ অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা তাদের বাসভবনেও এ অনুষ্ঠান উদযাপন করেন।

সোমবার সকাল ৮ ঘটিকায় গজারিয়া উপজেলা আওয়ামিলীগ এর উদ্যোগে উপজেলা পরিষদের হলরুমে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব এর জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া ও আলোচনা সভা প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মোঃ আমিরুলইসলাম, সাধারণ সম্পাদক ও গজারিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান। সভাপতিত্ব করেন মোঃ মহসিন চৌধুরী, সভাপতি গজারিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ। বিশেষ অতিথি মোঃ শাহজাহান খান, সভাপতি মুন্সিগঞ্জ জেলা যুবলীগ, আতাউর রহমান নেকি, ভাইস চেয়ারম্যান গজারিয়া উপজেলা পরিষদ,খাদিজা আক্তার আখি, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান গজারিয়া উপজেলা পরিষদ । আরও উপস্থিত ছিলেন নাসির উদ্দীন মিয়াজি, মুক্তি যোদ্ধা তানেস উদ্দিন, বি আর ডিবির চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্দা সিকান্দার আলী, হোসেন্দি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আঃ মতিন মন্টু, সাধারণ সম্পাদক শাহাবুদ্দিন, বালুয়াকান্দি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক আল-আমীন প্রধান, টেঙারচর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হারুন মোল্লা, যুবলীগ নেতা হাবিবুল বাশারসহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ।

অন্য দিয়ে গজারিয়া যুব মহিলা লীগের উদ্যোগে বাংলাদেশ মানবাধিকার কাউন্সিল অফিস গজারিয়ায় বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব এর জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া ও আলোচনা আয়োজন করেন।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অর্ধাঙ্গী ” বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব এর ৯২ তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা, দোয়া ও বিশেষ প্রার্থনায়।প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন
জনাব এডভোকেট মৃনাল কান্তি দাস এম পি মহোদয়,
মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
মাননীয় সাংসদ, মুন্সিগঞ্জ ০৩,
উদ্বোধক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মুন্সিগঞ্জ জেলা যুব মহিলা লীগ নেত্রী জনাব মোর্শেদা বেগম লিপি,
সভাপতিত্ব করেন অধ্যাপিকা ফরিদা ইয়াছমিন , আহ্বায়ক, যুব মহিলা লীগ গজারিয়া উপজেলা শাখা।
আরো উপস্থিত ছিলেন দুইবারের সফল চেয়ারম্যান জনাব রেফায়েত উল্লাহ খান তোতা ভাই ।
টেঙ্গারচর ইউনিয়ন পরিষদের সুযোগ্য চেয়ারম্যান জনাব কামরুল হাসান ফরাজি (এমবিএ),বাউশিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান প্রধান,ইমামপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হাফিজুর রহমান জিতু,গুয়াগাওছিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল খায়ের মোহাম্মদ আলী খোকন,হোসেন্দী ইউনিয়নের সাবেক দুইবার এর সফল চেয়ারম্যান মনিরুল হক মিঠু আজিম উদ্দিন ফরাজি সহ অনান্য আরো উপস্থিত ছিলেন ইউনিয়নের নেতকর্মীবৃন্দ।

এডভোকেট মিণাল কান্তি অনুষ্ঠানে বক্তব্য বলেন,
বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব কেবল জাতির পিতার সহধর্মিণীই নন, বাঙালির মুক্তি সংগ্রামে তিনি নেপথ্য কারিগর। আমাদের মুক্তিসংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে তার অবদান চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে।

অপর অনুষ্ঠানে আমিরুল ইসলাম বলেন, বাঙালির প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রামে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বঙ্গবন্ধুর পাশে থেকে তাকে পরামর্শ ও সহযোগিতা দিয়েছেন। এমনকি বঙ্গবন্ধুর অনুপস্থিতিতে তিনি অসীম ধৈর্য, সাহস ও বিচক্ষণতার সাথে পরিস্থিতি মোকাবিলা করেছেন। দেশ ও জাতির জন্য অপরিসীম ত্যাগ, সহমর্মিতা, সহযোগিতা ও বিচক্ষণতা তাকে বঙ্গমাতায় অভিষিক্ত করেছে।বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব যে আদর্শ ও দৃষ্টান্ত রেখে গেছেন তা যুগে যুগে বাঙালি নারীদের জন্য অনুপ্রেরণার উৎস হয়ে থাকবে। বাংলাদেশের ইতিহাসে তার অবদান চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে। দেশ ও জাতির জন্য তার অপরিসীম ত্যাগ, সহযোগিতা ও বিচক্ষণতার কারণে জাতি তাকে যথার্থই ‘বঙ্গমাতা’ উপাধিতে ভূষিত করেছে।