চলন্ত বাসে কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টায় আটক স্বামীকে ছাড়াতে থানায় দুই স্ত্রী

0
2

মানিকগঞ্জে সরকারি দেবেন্দ্র কলেজের ছাত্রীকে চলন্ত বাসে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে আটক বাসচালক খোকন মিয়াকে (২৮) ছাড়াতে সন্তানসহ থানায় হাজির হয়েছেন দুই স্ত্রী।
শনিবার (৬ নভেম্বর) সন্ধ্যার দিকে সাটুরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আশরাফুল আলম আসামি খোকন মিয়াকে আটককের বিষয়টি নিশ্চিত করেন। মানিকগঞ্জের সাটুরিয়া থানা চত্বরে খোকন মিয়ার দুই স্ত্রীর দেখা মেলে।
জানা গেছে, খোকন মিয়ার প্রথম স্ত্রীর বাড়ি গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার দেওয়াইর বাজার এলাকায়। ২০১৪ সালে খোকন মিয়ার সঙ্গে বিয়ে হয় তার। এরপর তাদের ঘরে আসে দুই সন্তান। প্রথম সন্তান মেয়ের বয়স ৮ বছর এবং ২য় সন্তান ছেলের বয়স ২ বছর। এদিকে দ্বিতীয় স্ত্রীর বাড়ি খোকন মিয়ার নিজ এলাকায়। প্রথম স্ত্রীর বিষয় গোপন রেখে দ্বিতীয় বিয়ে করেন খোকন। পরে জানাজানি হয়। ২০১৪ সালের শেষ দিকে বিয়ে হয় তাদের। এই ঘরেও রয়েছে এক কন্যা (৮) সন্তান।

খোকনের প্রথম স্ত্রী জানান, স্বামী আটকের ঘটনা জানতে পেরে তিনি থানায় এসেছেন। অভাব অনটনে কোনোমতে দিন কাটে তাদের। স্বামী তেমন কাজও করে না। একদিন কাজ করলে দুই দিন বসে খায়। তার ওপর এ দুর্ঘটনা। এখন সন্তান নিয়ে না খেয়ে মরা ছাড়া আমাগো গতি নেই। তাই স্বামীকে ছাড়িয়ে নিতে থানায় অফিসারদের হাত-পা ধরে আকুতি করেছিলেন তিনি।
দ্বিতীয় স্ত্রী বলেন, বিয়ের সময় প্রথম স্ত্রীর বিষয়ে জানতেন না। বিয়ের পর বিষয়টি জানতে পারেন। এরপরও স্বামীকে নিয়ে বেঁচে থাকার স্বপ্ন দেখেন। অভাবের দায়ে নিজে পোশাক কারখানায় চাকরি করেন। আলাদা বাসায় থাকলেও মাঝেমাঝে তার বাসায় যেতেন স্বামী খোকন মিয়া। তার ঘরেও রয়েছে এক কন্যা সন্তান।
স্বামীর বিষয়ে থানা পুলিশে তদবিরের বিষয়ে তিনি বলেন, স্বামী একটা ভুল করে ফেলেছে। তাই সকলের কাছে স্বামীর পক্ষ থেকে তিনি ক্ষমা চাচ্ছেন। তবে এ বিষয়ে তাদের কিছু করার নেই বলে জানাচ্ছে থানা পুলিশ।

সাটুরিয়া থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আশরাফুল আলম বলেন, চলন্ত বাসে কলেজছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে খোকনকে আটক করা হয়। ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ এনে মামলা করেছে কলেজছাত্রী। খোকনের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।