দুই পক্ষের পাল্টাপাল্টি বক্তব্য: অবশেষে জানা গেলো খালেদা জিয়া করোনাক্রান্ত

0
5

ডেস্ক রিপোর্ট : বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ না নেগেটিভ এ নিয়ে শুরু হয়েছে ব্যাপক ধোঁয়াশা এবং বিস্তর আলোচনা।

অবশেষে জানা গেলো সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী সত্যিই করোনায় আক্রান্ত। আজ দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে বলা হয়, দেশের সাবেক এই প্রধানমন্ত্রীর করোনা টেস্টের রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে।
অন্যদিকে বিএনপির হাই কমাণ্ড জানিয়েছিলো, খালেদা জিয়ার নিয়মিত স্বাস্থ্য পরিক্ষা হলেও হয় নি কোনো করোনা পরিক্ষা।

তাই তাঁর করোনাক্রান্তের খবরটিকে গুজব এবং ভূয়া বলে উড়িয়ে দেন তারা। উল্লেখ্য, গতকাল শনিবার (১০ এপ্রিল) বিকেলে তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিলো বলে জানিয়েছে আইসিডিডিআরবি।

আজ রবিবার (১১ এপ্রিল) তাঁর রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। আইসিডিডিআরবি’র ল্যাবে তাঁর করোনা পরীক্ষা হয়েছে বলেও জানা যায়।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা এ সম্পর্কে বলতে গিয়ে বলেন, ‘এই রিপোর্ট শতভাগ সত্য।’

এদিকে দুপুরে খালেদা জিয়ার ছোট ভাই শামীম ইস্কান্দারের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি এ নিয়ে মিডিয়ার সামনে মুখ খুলতে রাজি হন নি। অন্যদিকে বোন সেলিমা রহমানের বক্তব্য, তিনি নিজেই বেশ কিছুদিন যাবৎ অসুস্থ থাকায় বোনকে দেখতে যান নি। তাই তাঁর (খালেদা জিয়া) করোনাক্রান্ত হবার ব্যাপারে তিনি অজ্ঞাত রয়েছেন বলে জানান।

পরে বেলা সাড়ে ১২টার দিকে খালেদা জিয়ার বাসভবন সংশ্লিষ্ট এক ব্যক্তির সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করা হলে সেই ব্যক্তি নিজেকে সবুজ বলে দাবী করে বিএনপি চেয়ারপারসনের ব্যক্তিগত চিকিৎসক তাঁর ভাগনে ডা. মামুন ও ডা. অধ্যাপক এ জেড এম জাহিদ হোসেনের সঙ্গে যোগযোগ করার পরামর্শ দেন। খালেদা জিয়ার করোনা টেস্ট পজিটিভ এসেছে কি না এমন প্রশ্ন উঠলে তিনি বলেন, ‘এ নিয়ে আমি কিছু জানি না, জাহিদ স্যার ভালো জানবেন।’ কিন্তু পরবর্তীতে ডা. জাহিদকে মুঠোফোনে চেষ্টা করেও পাওয়া যায় নি।

এদিকে তাঁর কোভিড শনাক্ত হওয়ার তথ্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সূত্র নিশ্চিত করলেও এ বিষয়ে তার পরিবার কিছুই জানে না বলে তখন বলেছিলেন তারা। সেইসাথে ‘তিনি করোনা আক্রান্ত হয়েছেন’ এমন তথ্যকেও ডাহা মিথ্যা ও ভিত্তিহীন বলেও সেসময় (দুপুরে) অভিযোগ করেন।

খালেদা জিয়ার ভাগনে ও ব্যক্তিগত চিকিৎসক ডা. মামুন এ প্রসঙ্গে বলেন, খালেদা জিয়া কোভিডাক্রান্ত হয়েছেন বলে সরকার যে বিভ্রান্তিকর তথ্য ছড়িয়েছে তা সম্পুর্ণ ভিত্তিহীন ও মিথ্যা। তাঁর কোনো কোভিড টেস্টই হয় নি বলেও এ সময় জোর দাবি করেন তিনি।

বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস উইং সদস্য শায়রুল কবির খানও একই সুরে সুর মিলিয়ে বলেন, এটি চেয়ারপারসনের নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষা ছিলো তবে করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা নেওয়া হয়নি।

অবশেষে অনেক জলঘোলা হবার পর বিএনপি চেয়ারপরসন বেগম খালেদা জিয়ার করোনাক্রান্তের খবর সত্যি বলে জানিয়েছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি প্রফেসর ড. এফ এম সিদ্দিকীর তত্ত্বাবধানে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন বলেও জানান মির্জা ফখরুল।

আজ রবিবার (১১ এপ্রিল) বিকেল সাড়ে চারটার দিকে রাজধানীর গুলশানে চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এসব তথ্য সাংবাদিকদের জানান তিনি।

মির্জা ফখরুল আরো বলেন, তাঁর (খালেদা জিয়া) জ্বর বা অন্য কোনো উপসর্গ দেখা দেয় নি। যদি কোনো চিকিৎসার প্রয়োজন হয় তাহলে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।