একটি ভালোবাসার ছোট চিঠি

0
3

আব্দুল্লাহ আল-আমিন ( অভি ):

জানো ম্যাম, তোমারে রচনা লিখলে তুমি রচনা হিসাবে পড়ো না, আমার আবেগি লেখা লিখলে তোমার খারাপ লাগে তুমি ডিলেট করে দাও সব মেসেজ একবারে; নিজের চোখের জ্বল ফেলতে ফেলতে তোমারে নিয়ে লেখা গুলো তোমার কাছে মনে হয় হাসির ছলে লিখছি তাই তোমার কাছে মূল্যই পায় না! নিজেকে অনেক ছোট মনে হয়, নিজেরে ছোট করেই আপনাকে তো ভালোবাসি! তবে একটা কথা বলি, ‘এটা বললে তুমি পড়বা কিনা দেখাব তা জানি না, তুমি রিপ্লে দিবা নাকি দিবা না সেটাও জানি না, তুমি আবার এটা শুনার পর কি রিয়েকশন দিবা সেটাও জানি না, তবে কথাটা বলি, ‘মায়ের দোয়া তার সন্তানের জন্য আল্লাহ তারা তারী কবুল করেন! তবে কি জানো তার সাথে পরিচয় একবছর তিন মাস, এই এক বছরে আমি তোমার জন্য যত তাহাজ্জুদে সুস্থ কামনা করছি, তোমার জন্য আল্লাহর কাছে চাইছি, ‘ওয়াল্লাহি আমার মতন তোমার মা নিজেও তত দোয়া আর তাহাজ্জুদ পড়ে নাই আমার মনে হয়, একটা ছোট বাচ্চা যেভাবে তার বাবার কাছে হাত পেয়ে চোখের পানি নাকের ডগা বেয়ে মাটিয়ে পরে তবুও হাত সরায় না সেই ভাবে আমি নামাজ পড়ে আল্লাহর কাছে দোয়া করেছি; তোমারে যতটা আগলে রাখার চেষ্টা করছি ততটা তোমার বাবাও করে নাই, আসলেই তিনি হয়তো তোমারে ছোট থেকে বড় করছে, তবে এই একবছরের মধ্যে আমি যতটা করছি নিজের কাছেই প্রশ্ন করে দেখো ম্যাম, ‘আমি তোমার উপর ছেড়ে দিলাম!’
– জানো ম্যাম, ‘দোয়া কবুলের কিছু বিশেষ মূহুর্ত রয়েছে যে মূহুর্তে দোয়া করলে আল্লাহ বান্দার দোয়া কখনো ফিরিয়ে দেন না আমি সেই মূহুর্ত গুলো এক বছর ৩৬৫ দিনের ৩০০ দিনই মনে হয় দোয়া করছি, কারন তোমার ভালো চাইছি সব সময় আমি!’ 
– জানো ম্যাম, ‘দান-সদকা করে আল্লাহর কাছে দোয়া করলে আল্লাহ তায়ালা ফিরিয়ে দিতে লজ্জা পায় “আমি বেশি বেশি দান-সদকা করে তোমার জন্য দোয়া করছি কারন তোমার মুখে হাসি ফুটলে আমার ঠোঁট হাসে!’ 
– জানো ম্যাম, ‘আমি শুধু তোমার একটু ভালোবাসা চাইছি, তোমার মনের মাঝে একটু জায়গা চাইছি, কিন্তু তোমারে চাইনি তুমি কখনো বলতে পারবা না অভি তোমার কাছে সম্পর্কের নাম দিতে চাইছে, তোমারে বলছে বলছে অভির জীবনে তোমারে চাইছে কারন আমি তোমারে যতটা না চেয়েছি আল্লাহর কাছে তার চেয়ে বরং তোমার সুস্থতা কামনা করছি।
– জানো ম্যাম, ‘তোমার জন্য আমি এই ১ বছরের যতটা না কান্না করছি তোমার লাইফে বিয়ে হবে, স্বামী হবে সে হয়তো পুরা জীবনেও ততটা কান্না করতে পারবে না! তুমিও দেখছো কলে থেকে ঘন্টার পর ঘন্টা কান্না করছি আর আল্লাহর কাছে দোয়া করছি কারন তোমারে আল্লাহ যেনো সকল বিপদ-আপদ থেকে হেফাজত করে!’ 
– জানো ম্যাম, ‘তোমার পিরিয়ডের ব্যাথার কথা শুনলে তোমারে আমি অল্প কিছু বলে একটু বুঝিয়ে তারপর অযু করে আল্লাহর কাছে দোয়া করতাম যেনো আল্লাহ তোমার ব্যাথা কমিয়ে দেয়!’ ☺️
– জানো ম্যাম, ‘তুমি কোনো সমস্যাতে পরলে তোমার পরিবারের কেউ যতটা না টেনশন করতো আমি ততটা টেনশন করে আল্লাহর কাছে দোয়া করতাম তুমি যেনো সুস্থ আর তোমার যেনো কিছু নাহয় আল্লাহকে বার বার বলতাম আল্লাহ আপনি মেয়েটাকে হেফাজতে রাখিয়েন!’
– জানো ম্যাম, ‘তোমার ফেইসবুকে দিনের পর দিন যখন বন্ধু বারে, আমার জায়গাটা মান যত কমে আমার খারাপ লাগে তবুও জানো আমি তোমায় কিছু বলি না সব সময় আলাহকে বলি, “আল্লাহ মেয়েটা একটু পাগলী টাইপের, সবার সাথে ভালো মনে করে কথা বলে কেউ যেনো তারে কষ্ট না দেয়, তারে সব খারাপ বন্ধু থেকে দুরে রাখিয়েন, তারে আপনি দেখেশুনে রাখিয়েন! ক্যান বলি কারন এই জেনারেশনের অনেক ছেলেই মেয়েদের নিয়ে খেলতে ভালোবাসে, তারা বাইরে অনেক ফিট ফাট থাকে, বুঝা যাবে না তারা খারাপ, তাদের কথা বার্তা একদম অলি-আউলিয়াদের মতন কিন্তু তাদের অতীতে মেয়ে নিয়ে খেলা করার রেকর্ড আছে!’
– জানো ম্যাম, ‘শুধু এতো টুকু একটা ট্রেলার ছিলো আরো ভিতরে ভিতরে কত কিছুই করি একদিন চোখটা বন্ধ করে ভেবে দেখিও অভি তোমার জীবনে যতদিন ছিলো বা আছে ততদিন কি কি করেছে কতটা আগলে রাখতো, সম্মানের রাখতো, ভালোবাসতো!’ 

– হাশরের ময়দানে তো সবাইকে আল্লাহ তায়ালা স্টোরি হিসাবে দেখানো হবে তাদের জীবনের কি কি করেছে, ‘আল্লাহ যেনো আমার তোমারে নিয়ে তাহাজ্জুদ পড়া, দোয়া করা, আল্লাহর কাছে হাত তুলে কান্না করার ভিডিও টা দেখায়, তোমারে যেনো দেখায় এই ছেলেটা আপনার জন্য কতটা নিচু হয়ে, কতটা কষ্ট নিয়েও হাসি-মুখে আপনারে ভালোবাসতো, আপনারে আগলে রাখছে, কতটা আপনারে নিয়ে ভাবছে; আপনি সেদিন সব দেখবেন!’ 
.
মাঝে মাঝে মনে হয় কি জানেন ম্যাম, ‘আর কি করলে শুধু আপনার মনের মাঝে স্পেশাল ওয়ান হতে পারবো, আর কত কি করলে একটু ভালোবাসা পাবো, আর কত ছোট হলে আপনি বলবেন, ‘কি অভি এতো কিছুর পরও আমারেও চাও! আচ্ছা আমি তোমার হয়েই থাকবো টেনশন নিও না!’
– তবে কি জানো, ‘আমি এক বছর না ১ যুগ না যতদিন বেঁচে থাকবো ততদিন দোয়া করবো, আপনার জন্য আল্লাহর রাস্তান দান-সদকা করবো, আপনার জন্য আল্লাহর কাছে হাত তুলে মুনাজাতে কেঁদে কেঁদে দোয়া করবো, আপনার পরিবারের জন্য দোয়া করবো ইনশাআল্লাহ! পানি আর তেল একসাথে যেমন মিক্সড হয়না আপনার ভালোবাসা আমার ভালোবাসা তেমন মিক্সড হবে না কিন্তু আমি আট-দশটা ছেলের মতন না আপনার ভালোবাসা না পেলে আপনার নামে খারাপ অপবাদ দিবো, অন্য মেয়ের পিছনে ঘুরবো, অন্য মেয়েকে পটানোর চেষ্টা করবো, দেখতে কালো হতে পারে, তবে ভিতরের লাল রক্তে ঘিরে থাকা জিনিসটা আপনারে ভালোবাসে, আপনারেই ভালোবাসবে, যতদিন বেঁচে আছে! ৬০ বছর পরেও বলতে পারবে আমি আমার জীবনের সবটুকু দিয়েই একজন রে ভালোবাসিয়াছি, আর ভালোবাসি, ভালোবাসবো।