পেছাবে না ডিপিএড পরিক্ষা

0
24

সময়ের পাতা:  প্রশিক্ষণার্থী শিক্ষক এবং শিক্ষক নেতাদের দাবির পরও ডিপ্লোমা ইন প্রাইমারি এডুকেশন (ডিপিএড) বোর্ডের প্রকাশিত চূড়ান্ত লিখিত পরীক্ষা পেছানো হচ্ছে না। তবে আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি নির্বাচন উপলক্ষে বিভিন্ন এলাকায় ছুটি থাকায় ওইদিনের পরীক্ষা পেছানো হবে।

প্রসঙ্গত, আগামী ২২ ফেব্রুয়ারি থেকে দেশের ৬৭ প্রাইমারি ট্রেনিং ইনস্টিটিউটে প্রায় ২০ হাজার প্রাথমিক শিক্ষকদের ডিপিএড সার্টিফিকেট কোর্সের চূড়ান্ত লিখিত পরীক্ষা শুরু হচ্ছে। পরীক্ষার সূচি অনুযায়ী পরীক্ষা চলবে আগামী ১০ মার্চ পর্যন্ত।

জানতে চাইলে জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা একাডেমির (নেপ) মহাপরিচালক মো. শাহ আলম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন বলেন, ‘পরীক্ষা পেছানো হচ্ছে না। আগামী ২২ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হবে। বিভিন্ন এলাকায় শুধুমাত্র ২৮ ফেব্রুয়ারি পৌরসভা নির্বাচনের ছুটি থাকায় ওইদিনের পরীক্ষার পেছানো হবে।’

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ছুটির মধ্যে পরীক্ষা না নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন প্রশিক্ষণার্থী শিক্ষকরা। এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে মহাপরিচালক মো. শাহ আলম বলেন, ‘শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ছুটির সঙ্গে এর কোনও সম্পর্ক নেই। দেশের সকল ইনস্টিটিউট চলছে। শিক্ষকরা বললেই হবে নাকি?”

বুধবার (১৭ ফেব্রুয়ারি ) পরীক্ষা পিছিয়ে দিতে ৬ জন শিক্ষকের পক্ষে আইনি নোটিশ করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মোহাম্মদ ছিদ্দিক উল্লাহ্ মিয়া। পাবনা পিটিআইয়ের মো. শাহ আলম, জামালপুর পিটিআইয়ের মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম, টাঙ্গাইল পিটিআইয়ের মো. রবিউল ইসলাম, নারায়ণগঞ্জ পিটিআইয়ের সুজন-উজ জামান, কিশোরগঞ্জ পিটিআইয়ের জহিরুল ইসলাম এবং মাগুরা পিটিআইয়ের মো. নাদিম ইমরানের পক্ষে এ নোটিশ করা হয়।

বুধবার (১৭ ফব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় পরীক্ষা পেছানোর দাবি জানিয়েছেন বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক ঐক্য পরিষদের সদস্য সচিব ও সহকারী শিক্ষক সমিতির সভাপতি মোহাম্মদ শামছুদ্দীন মাসুদ। তিনি বলেন, ‘আবাসন সংকটের কথা বিবেচনায় রেখে ডিপিএড পরীক্ষা দেওয়া উচিত। আমি পরীক্ষা এক মাস পিছিয়ে পিছিয়ে দেওয়ার দাবি জানাচ্ছি।’

পরীক্ষা পেছানোর দাবি জানাতে মঙ্গলবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে বাংলাদেশ প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক সমিতির নেতারা প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব গোলাম মো. হাসিবুল আলমের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।

সচিবের সঙ্গে বৈঠকে সহকারী শিক্ষক সমিতির ঢাকা মহানগর আহবায়ক নিগার সুলতানা ও যুগ্ম-আহবায়ক তাসলিমা সুলতানা ২২ ফেব্রুয়ারি থেকে নির্ধারিত ডিপিএড পরীক্ষা পেছানো দাবি তুলে ধরেন।

শিক্ষক নেতারা জানান, প্রশিক্ষণার্থীদের প্রস্তুতি ও আবাসন সমস্যার বিষয়টি তুলে ধরলে সচিব বলেন, ‘ঊর্ধ্বতন মহল এবং বিভিন্ন দফতরের সঙ্গে আলোচনা করেই পরীক্ষার সময়সূচি নির্ধারণ করা হয়েছে। সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করে পরীক্ষা সংশ্লিষ্ট সকল দফতরকে তা অবহিত করা হয়ে গেহে। এই অবস্থায় পরীক্ষা পেছানো কঠিন। ’

প্রশিক্ষণার্থীদের পরীক্ষা নিয়ে দুশ্চিন্তা না করার জন্য অনুরোধ করে সচিব শিক্ষক নেতাদের আবাসন সমস্যা সমাধানে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে পিটিআই সুপার এবং নেপ এর মহাপরিচালকের সঙ্গে কথা বলার আশ্বাস দেন।

প্রশিক্ষণার্থী শিক্ষকরা জানান, আসন্ন ডিপিএড পরীক্ষাদের আবাসন সংকট রয়েছে। আর করোনার কারণে প্রস্তুতি ঠিকমতো নেওয়া সম্ভব হয়নি। এই অবস্থায় পরীক্ষা পেছানো উচিত।