আত্রাইয়ে এসএসসি পরীক্ষার্থীদের ব্যবহারিক পরীক্ষায় নাম্বার কম দেবার কথা বলে টাকা আদায়ের অভিযোগ 

0
51

সময়ের পাতাঃ ওগাঁর আত্রাইয়ে এসএসসি পরীক্ষার্থীদের ব্যবহারিক পরীক্ষায় নাম্বার কম দেওয়ার কথা বলে টাকা আদায় করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।ঘটনাসূত্রে জানা গেছে আত্রাই উপজেলার বান্দাইখাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ে রসায়ন পদার্থ জীববিজ্ঞান ও উচ্চতর পরীক্ষার জন্য ২৫০ এবং প্রধান শিক্ষক কতৃক ক্যারিয়ার শিক্ষা, তথ্য ও যোগাযোগ পযুক্তি এবং শারিরীক শিকার জন্য ১৫০ করে মোট ৪০০ টাকা করে নিয়েছে যেটা নেওয়ার কোন নিয়ম নেই।এলাকার সচেতন অবিভাবকরা জানায় বান্দাইখাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ে এটা নতুন নয় প্রতিবছর ই এইভাবে পরীক্ষার্থীদের চাপ প্রয়োগ করে টাকা আদায় করা হয় কেউ কিছু বলার নাই ছেলেমেয়েদের পরীক্ষা ভালোর জন্য আমরা দিতে বাধ্য হয়।এসএসসি পরীক্ষার্থী নাহিদ, মাহফুজ সহ আরও কয়েকজন অভিযোগ করে বলেন আমরা খাতা সাক্ষর করতে গেলে টাকা ছাড়া খাতা সাক্ষর হবেনা এবং বাধ্য হয়ে টাকা দিতে হয়েছে।উপজেলার কোন স্কুলে খাতা সাক্ষরের জন্য কোন টাকা নেয়নি।আত্রাই এ কেন্দ্র প্রধান শিক্ষক আমাদের বলেন টাকা দেওয়ার কোন নিয়ম নাই।এবং প্রধান শিক্ষক হতে নেওয়া টাকায় শুধু ৭০টাকা করে বোর্ডে ফ্রী দিতে হয়েছে।এবং তিনি আমাদের আরও বলেন আমরা যেন টাকা ফেরত নিয় এবং স্যাররা নাম্বার না দিলে তিনি নিজেই পরীক্ষার সময় উপস্থিত থেকে সকলকে মেধা অনুসারে প্রাপ্য নাম্বার দিবেন।বান্দাইখাড়া উচ্চ বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক এমদাদুল হক সরকারের সাথে কথা বলা হলে তিনি বলেন আমি কোন পাক্টিকালের জন্য টাকা নেইনি এবং তাকে ১৫০টাকা নেওয়ার কারণ বললে তিনি বলেন ওটা বোর্ড ফ্রী দিতে হবে।যখন বোর্ড ফ্রী দিতে হয়েছিল তখন আমি নিজের পকেট হতে টাকা দিয়েছিলাম।এ বিষয়ে বান্দাইখাড়া উচ্চ বিদ্যালয় শিক্ষক আঃ সামাদকে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করে টাকা নেওয়ার কারণ জানতে চাইলে তিনি মোবাইল এ কোন তথ্য দিতে রাজি না তিনি বলেন একসঙ্গে দেখা করেন সরাসরি সব বলব।আত্রাই-এ পরীক্ষা কেন্দ্র প্রধান শিক্ষক সনত কুমার প্রামাণিক বলেন এটা নেওয়ার কোন নিয়ম নেই।যেসব শিক্ষা নিয়ে বানিজ্য করেন তাদের চিহ্নিত করে উপযুক্ত বাবস্থা করতে বলেন।নওগাঁ জেলা শিক্ষা অফিসারের সাথে মোবাইল ফোনে বারবার যোগাযোগ করা হলে তার ফোনটা বন্ধ পাওয়া যায়।