কুড়িগ্রাম জেলার জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের বন্যার প্রায় ১৫.০০ লক্ষ টাকা ভাগ বন্টন

0
8
মোঃ একরামুল হক বুলবুল, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ
২০১৭ সালে বন্যা হয়েছে। সেই বন্যার ঠিকাদারি কাজের খরচের জন্য নির্বাহী প্রকৌশলী, কুড়িগ্রাম জেলা থেকে বরাদ্দ প্রদানের জন্য চাহিদা প্রদান করা হয়।
সেই বন্যার খরচের চাহিদা মোতাবেক নির্বাহী প্রকৌশলী, কুড়িগ্রাম জেলা বরাবর প্রায় ২৪.০০ লক্ষ তহবিল প্রদান করেন। ২০১৭ সালে বন্যার সময় নলকুপ এবং ল্যাট্রিন স্থাপন করা হয়েছে তার বিল প্রায় ৮-৯ লক্ষ টাকার মত। অবশিষ্ট প্রায় ১৫.০০ লক্ষ টাকা ভুয়া বিল ভাউচার এর মাধ্যমে উত্তোলন করে জেলা কার্যালয়ের অফিসারগন ভাগ বন্টন করে নেয়।
কর্মচারীগণ বন্যার সময় দিন রাত পরিশ্রম করলেও তারা কোন টাকার ভাগ পায়নি। কর্মচারীগন টাকার ভাগ না পাওয়ায় তাদের মধ্যে অসোন্তষ ও চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। কুড়িগ্রাম জেলার সরকারি এই ডির্পাটমেন্ট দেখার কেউ নেই। এখানে অনিয়ম নিয়মে পরিনত হচ্ছে। এ বিষয়ে নির্বাহী প্রকৌশলীর সঙ্গে কথা বলা হলে তিনি তার সহকারী প্রকৌশলী নাইমুল এর কথা বলেন।
নাইমুল এর সঙ্গে কথা বল্লে তিনি ক্যাশিয়ার এর কথা বলেন। ক্যাশিয়ার এর সঙ্গে কথা বল্লে তিনি বন্যার বিষয়ে তথ্য দিতে অপরাগতা প্রকাশ করেন। বন্যার আসল তথ্য ধামাচাপা দেওয়ার জন্য বিভিন্নভাবে কর্মচারীদেরকে ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছে এবং বদলী করা হচ্ছে।
উল্লেখ্য যে, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর, কুড়িগ্রাম জেলার নির্বাহী প্রকৌশলীর অসুস্থতার সুযোগ নিয়ে সহকারী প্রকৌশলী নাইমুল নিয়ম কানুন কোন কিছু তোয়াক্কা না করে তার ইচ্ছামত কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।