ইলেকট্রিক মিস্ত্রিকে মিথ্যা মামলায় ফাসানোয় এলাকায় ক্ষোভ

0
70

লিংকন, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি:   পৌর শহরের এক ইলেকট্রিক মিস্ত্রি ও তার পুত্রকে একটি কাল্পনিক এবং মিথ্যা মামলার আসামী বানানোর ঘটনায় এলাকায় ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। আপন ভাইয়ের সম্পত্তি জবর দখলকারী আব্দুর রহিম গং এর দায়েরকৃত সাজানো মামলাটি হরিকেশ কানিপাড়া এলাকাবাসী প্রশাসনের নিকট সরেজমিন তদন্তের দাবী করছে। গতকাল সরেজমিন গিয়ে এবং এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে জানা যায়, কুড়িগ্রাম পৌর শহরের হরিকেশ কানিপাড়া এলাকার মৃত- আছমত উল্যার পুত্র আব্দুর রহিম তার ভাতিজা মৃত- নুর জামালের পুত্র সবুজ মিয়া (৩২) কে বাদী করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কুড়িগ্রাম সদর আদালতে গত ২৪ আগস্ট/২০ইং ফৌজদারী কার্যবিধি আইনের ১০৭ ধারায় একটি মামলা দাখিল করেন। উক্ত মামলার বিষয় গ্রামবাসীর সাথে কথা হলে তারা ক্ষোভ প্রকাশ করে জানায় ঘটনার দিন ও সময়ে আর্জিতে বর্ণিত তফসিলভুক্ত জমিতে এরকম কোন ঘটনাসম্পদ দখল ঘটেনি। ২১ আগস্ট শুক্রবার সকাল ১০টায় আমরা সবাই বাড়িতে ছিলাম। এটি একটি মিথ্যা সাজানো এবং হয়রানীমুলক মামলা। প্রকৃত সত্য হচ্ছে আব্দুর রহিম তার বড় ভাই সৈয়দ আলীর জমি জবর দখলে রাখতে তার পক্ষের লোক দিয়ে একটা করে সাজানো এবং মিথ্যা মামলার মাধ্যমে হয়রানী করছে। কথা হয় কুড়িগ্রাম জেলা আ’লীগের সাবেক সহ- সভাপতি আব্দার হোসেন বুলুর সাথে। তিনি ও আহম্মদ মিয়া জানান, সৈয়দ আলীর জমি রহিম দখল দিচ্ছে না। বহুবার গ্রাম্য শালিস বৈঠক হয়েছে। ১০৭ ধারার মামলায় ইলেকট্রিক মিস্ত্রি লাভলু ও তার পুত্র জীবনকে আসামী করা ঠিক হয়নি। স্থানীয় মুরুব্বি নুর ইসলাম, মকবুল মিয়া ও শহীদ আলী বলেন- ভাই ভাইদ্ব›েদ্ব লাভলু ও তার পুত্র জড়িত নয়। তাদেরকে আসামী করা অন্যায় হয়েছে। নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যক্তি প্রশাসনের নিকট মিথ্যা ও কাল্পনিক মামলাটির প্রকৃত সত্য উদঘাটনে তদন্তের দাবী জানান। লাভলু মিয়া ও তার পুত্র জীবন জানান, অন্যায় ভাবে হয়রানী করতে মামলায় আমাদের জড়ানো হয়েছে। মামলার বিষয়ে কথা বলতে আব্দুর রহিম ও সবুজ মিয়ার বাড়িতে গিয়ে দেখা পাওয়া যায়নি।