বগুড়ায় বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকা

0
45

ডেস্ক রিপোর্টঃ বিয়ের দাবিতে ঢাকা গার্মেন্ট থেকে শেরপুরে প্রেমিক বন্ধুর বাড়িতে এসে লাঞ্ছিত ও প্রতারিত হয়েছে আয়শা সিদ্দিকা (২৩) নামের এক যুবতী।অবশেষে বাড়ির লোকজন তাকে মারপিট করে ধরে দিয়েছে শেরপুর থানা পুলিশের কাছে।ঘটনাটি বগুড়া জেলার শেরপুর থানার পৌর শহরের ৭নং ওয়ার্ডের টাউন কলোনি পাড়ায় গত সোমবার ঘটেছে।শেরপুর থানা পুলিশের হেফাজতে থাকা উত্তরের লালমনিরহাট জেলার হাতিবান্ধা থানার পাটকাবাড়ি গ্রামের মৃত আশরাফ আলীর ছোট মেয়ে গার্মেন্টকর্মী আয়শা সিদ্দিকার।আয়শা সময়ের পাতাকে জানায়,প্রায় আড়াই বছর আগে বগুড়ার সোনাতলা উপজেলায় একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে তার এক নিকট বান্ধবীর মাধ্যমে পরিচয় হয় শেরপুর পৌরশহরের টাউন কলোনি পাড়ার আবুল হোসেনের পুত্র জুবায়ের হোসেন (২৬) এর সঙ্গে। এরপর মোবাইল ফোনে যোগাযোগ থেকে গভীর প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে আমাদের মাঝে।সেখান থেকে স্বামী-স্ত্রীর মতো দৈহিক সম্পর্কে গড়ায়।এর মাঝে আয়শা সিদ্দিকা অভাবের কারণে ঢাকার সাভারে অনন্ত নামের একটি গার্মেন্ট শিল্পে চাকরি নেয়। সেখানে প্রতিদিন মোবাইল ফোনে বারবার যোগাযোগ হয় জোবায়েরের সঙ্গে।একপর্যায়ে বগুড়ার শেরপুর বাসস্ট্যান্ড এলাকার দক্ষিণ পাশে নিজেকে রিয়াদ ফার্নিচারের মালিক দাবি করে জোবায়ের হোসেন।এর মাঝে বেশ কয়েক বার শেরপুরে এসে বাগড়া গ্রামে তার বন্ধুর বাড়িতে উঠে বিভিন্ন স্থানে ঘুরে বেড়ায় আয়শা ও জোবায়ের।তারপর ঢাকায় গিয়ে স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে মাসের পর মাস একত্রে বাসাভাড়া নিয়ে থেকেছে দুই জনে।এর মাঝে সাড়ে ৪ মাসের অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে আয়শা সিদ্দিকা।তখন বিষয়টি জানাজানি হলে ঢাকায় একটি ক্লিনিকে নিয়ে আয়শার গর্ভের সন্তান নষ্ট করা হয়।এরপরও বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করা হয়নি তাদের। এদিকে প্রায় মাস খানেক আগে জোবায়ের হোসেন আয়শাকে শেরপুরে আসতে বলে বিয়ের কাজ সম্পন্ন করার জন্য।এ কারণে গত সোমবার বিকালে আয়শা শেরপুরে আসার পর তাকে টাউন কলোনি পাড়ার নিজ বাড়িতে নিয়ে যায় জোবায়ের।এরপর আয়শাকে বাড়ির গেটে রেখে সেখান থেকে তাড়িয়ে দেয়া হয়।সোমবার রাতে ওই অবস্থায় জোবায়েরের চাচার বাড়িতে আশ্রয় নেয় আয়শা।এরপর গতকাল একজন পৌর কাউন্সিলরের প্রভাব দেখিয়ে আবারও জোরপূর্বক মারপিট করে শেরপুর থানায় দেয়া হয়। আয়শা জানায়,আমাকে বিয়ের জন্য ঢাকা থেকে ডেকে নিয়ে এসে জোবায়ের এর মা-বাবা পরিচয় দিয়ে বেশ কয়েকজন নিকট আত্মীয় তাকে বেদম মারপিট করেছে।