তিস্তার চরে পৌঁছেনি শিক্ষার আলো

0
15

রাজারহাট (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধিঃ জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহের আনন্দ থেকে বঞ্চিত হয়েছে কুড়িগ্রামের রাজারহাট উপজেলার তিস্তার চরের ক্ষুদে ছেলে-মেয়েরা। স্বাধীনতার দীর্ঘ ৪৫ বছর পেরিয়ে গেলেও তিস্তা নদী বিধৌত চরাঞ্চলে মাধ্যমিক স্তরের কোন বিদ্যালয় বা মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠিত হয়নি। ফলে চরাঞ্চলের ছেলে-মেয়েরা সু-শিক্ষায় শিক্ষিত হতে পারছে না।
এলাকাবাসীরা জানান, বহু বছর আগে বিদ্যান নামের একজন জমিদার এবং তার একমাত্র পুত্র নন্দের যৌথ নাম করনে  গ্রামের নাম হয়েছিল বিদ্যানন্দ। বিদ্যানন্দ এখন ইউনিয়ন। এর বৃহৎ একটি অংশ তিস্তা নদী বিধৌত চরবিদ্যানন্দ ও চরতৈয়বখাঁ। বিদ্যান ব্যাক্তির নামে গ্রামের নাম হলেও এখানে কোন মাধ্যমিক স্তরের বিদ্যালয় বা মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠিত হয়নি। এই দুটি গ্রামের লোক সংখ্যা প্রায় ৮হাজার । এরমধ্যে দুই হাজারের বেশি রয়েছে বিভিন্ন পর্যায়ের শিক্ষার্থী। এই গ্রাম দুটি থেকে কোন শিক্ষার্থী মাধ্যমিক পর্যায়ে ভর্তি হলে তিস্তা নদী পার হয়ে যেতে হয় ডাংরারহাট উচ্চ বিদ্যালয় অথবা ডাংরারহাট আলীম মাদ্রাসায়। ফলে অধিকাংশ পরিবারের সন্তানরা ৫ম শ্রেণীর পর আর লেখাপড়া করতে পারে না। ফলে দরিদ্র পিড়িত চরবিদ্যানন্দ ও চরতৈয়বখাঁ গ্রামের শিশুরা শিক্ষা ক্ষেত্রে পিছিয়ে যাচ্ছে।
মুক্তিযোদ্ধা ছানাউল্ল্যাহ জানান, আমরা দীর্ঘদিন ধরে এই গ্রাম দু’টির মধ্যে একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয় স্থাপনের দাবী জানিয়ে আসলেও লাভ হয়নি।
এব্যাপারে রোববার রাজারহাট উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ আবুল হাসেম জানান, চরের মানুষরা অবহেলিত। তাই তাদের ছেলে-মেয়েদের জন্য মাধ্যমিক বিদ্যালয় তৈরি করা জরুরী। বিষয়টি নিয়ে প্রশাসনের সাথে কথা বলবো।