‘৫ জানুয়ারি’ নিয়ে বিএনপির শোডাউন, ভাবছে না আ’লীগ

0
27

সময়ের পাতা ডেস্ক: আলোচিত-সমালোচিত ‘৫ জানুয়ারি’র আর ৮ দিন বাকি। ক্ষমতাসীন সরকারের তিন বছরপূর্তি। বিএনপি দশম সংসদ নির্বাচনের দিনকে ‘গণতন্ত্র হত্যা দিবস’ হিসেবে পালন করে আসছে। এই দিনে ঢাকাসহ সারা দেশে ফের ব্যাপক শোডাউন করার উদ্যোগ নিয়েছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দল। ৫ জানুয়ারি সারাদেশে কালো পতাকা মিছিল ও ৭ জানুয়ারি রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশের ঘোষণা দিয়েছে বিএনপি। বিএনপি বলছে, ‘শান্তিপূর্ণ’ ও ‘গণতান্ত্রিক’ পন্থায় এ কর্মসূচি পালন করবে তারা। ওইদিন বিএনপিও সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ করার অনুমতি চাইবে।

এদিকে এদিনটিকে কেন্দ্র  করে জনমনে নানা জল্পনা-কল্পনা থাকলেও বাড়তি চিন্তা নেই ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ভেতরে। দলটির কেন্দ্রীয় নেতারা মনে করেন, ওইদিন বিএনপি রাজপথে নেমে শক্তি প্রদর্শন করতে পারবে না। দলটির সেই শক্তি-সামর্থ্য নেই বলেও মনে করেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা।

এ কারণে দিনটিকে ঘিরে বিএনপি নিয়ে আপাতত ভাবছে না ক্ষমতাসীন দলটি। যথারীতি ওইদিন রাজপথে থেকে নিজেদের সাংগঠনিক শক্তি দেখাতে ‘গণতন্ত্রের বিজয় দিবস’ হিসেবে পালন করবে ক্ষমতাসীন দলটি। ক্ষমতাসীন দলটির নীতি-নির্ধারণী পর্যায়ের নেতাদের সঙ্গে আলাপকালে এমন তথ্য জানা গেছে।

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের মতে, বিএনপি দিনে দিনে দুর্বল হচ্ছে। শক্তি-সামর্থ্য ও সাংগঠনিক অবস্থা একেবারেই তলানীতে। সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচনে ভরাডুবি বিএনপির নেতাকর্মীদের আরও দুর্বল করে ফেলেছে।

অবশ্য ক্ষমতাসীন দলটির গুরুত্বপূর্ণ একটি সূত্র নিশ্চিত করে, বিএনপি এবার মাঠে নামার সুযোগও পাবে না। অন্তত ঢাকা শহরের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা সতর্ক পাহারায় থাকবে। সারাদেশেও আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের ৫ জানুয়ারি সারাদিন সতর্ক অবস্থানে থাকবে।

উল্লেখ্য, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন বর্জন করে তা প্রতিহতের ঘোষণা দেয় বিএনপি। তবে সহিংসত হরতাল-অবরোধের মধ্যেও সরকার নির্বাচন করে। ২০১৫ সালের ৫ জানুয়ারি সরকারের এক বছর পূর্তিতে ‘চূড়ান্ত’ আন্দোলনের ডাক দিয়ে খালি হাতে ঘরে ফেরে বিএনপি।

২০১৬ সালে বিএনপি এই দিনটিতে রাজধানীতে সমাবেশ করলেও আন্দোলনের কোনো কর্মসূচি ঘোষণা করেনি। নির্বাচনের তৃতীয় বর্ষপূর্তিতেও ‘শান্তিপূর্ণ’ কর্মসূচি পালনের কথা বলছে দলটি। তথ্যসূত্র: আমাদের সময় ডটকম