কুড়িগ্রামে দেশীয় বাদ্যযন্ত্র টিকিয়ে রাখতে দুই ভাইয়ের সংগ্রাম

0
38

সৌরভ কুমার ঘোষ, কুড়িগ্রাম : আগের দিনের মত আর দেশীয় সংস্কৃতি বাদ্যযন্ত্রের তেমন চাহিদা নেই। যুগ পরিবর্তনের সাথে সাথে হারিয়ে যেতে বসেছে দেশীয় সংস্কৃতি বাদ্যযন্ত্র ঢাক-ঢোল, করতাল, তবলা।

তবে অনেক কষ্ট করে বাপ-দাদার পেশার হাল ধরেছে কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার নাওডাঙ্গা ইউনিয়নের বাদিয়ার টারীর গ্রামের অতুল চন্দ্র নট্টের দুই ছেলে রতন চন্দ্র নট্ট (৩৮) ও স্বপন চন্দ্র নট্ট (৩০)।

দুই ভাইয়ের সঙ্গে কথা হলে তারা জানান, জন্মের পর থেকে দাদা পচা চন্দ্র নট্ট ও বাবা অতুল চন্দ্র নট্টের কাছ থেকে এই বাদ্যযন্ত্রের ব্যবহার করতে শিখে তারা  পরে আস্তে আস্তে এই বাদ্যযন্ত্র তৈরি করতে শিখিয়েছেন। এক সময়ে দেশীয় বাদ্যযন্ত্রের চাহিদা অনেক গুণে বেশি ছিল। এখন সময়ের সঙ্গে সঙ্গে আধুনিক বাদ্যযন্ত্রের বাদ্যযন্ত্রের সঙ্গে তাল দিতে না পেরে তাদের মূল ব্যবসা বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়ে দাড়িয়েছে।

তারা আরো জানান, প্রথমে বাপ-দাদরাই এ উপজেলায় দেশীয় বাদ্যযন্ত্রের তৈরি ও মেরামতের কাজ। যেমন- ঢাক- ঢোল,করকা,খোল,তবলা,একতারা,খমর,দো-তারা,ঢোলকসহ সাইড ড্রাম।

বাবা অতুল চন্দ্র নট্ট বয়স বাড়ার কারণে ঠিকমত চলতে ফিরতে না পারায় দুই ভাই রতন চন্দ্র নট্ট ও স্বপন চন্দ্র নট্ট বাবার ব্যবসা পরিচালনা শুরু করেন। বাড়ির পার্শ্বে বালার হাট বাজারে ছোট একটি রুম ভাড়া নিয়ে দুই ভাই মিলে বাদ্যযন্ত্র তৈরি ও মেরামতের পরিচালনা করছে। বর্তমানে এ পেশায় কাজ করে তাদের দুই ভাইয়ের সংসারের ভরণ-পোষণ কষ্টকর হয়ে পড়েছে।

তারা এই দুই ভাই জীবন বাঁচার তাগিদে কঠোরর পরিশ্রম করে জীবন যুদ্ধের লড়াকু সৈনিক হলেও উপজেলার বাদ্যকার সম্প্রদায়ের একশ ঘর পরিবারের অবস্থা একবারেই ভাল নেই।