তানিয়া আহমেদ পরিচালিত প্রথম ছবি ‘ভালোবাসা এমনি হয়’

0
65

Mimসময়েরপাতাঃ জনপ্রিয় অভিনেত্রী তানিয়া আহমেদ পরিচালিত প্রথম  ছবির মাধ্যমে নায়ক হিসেবে অভিষেক হচ্ছে ইরফান সাজ্জাদের। সহশিল্পী হিসেবে অভিনয় করেছেন বিদ্যা সিনহা মীম। এ ছাড়াও রয়েছেন মিশু সাব্বির ও তারিক আনামসহ অনেকেই। সম্প্রতি সিনেমাটির খুঁটিনাটি দিক নিয়ে এক আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয় চ্যানেল আই প্রাঙ্গণে। উপস্থাপনায় ছিলেন অপু। ছবির নানা দিক তুলে ধরেন ইমপ্রেস টেলিফিল্মের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর, পরিচালক তানিয়া আহমেদ এবং ছবির সঙ্গে যুক্ত অন্য শিল্পীরা। আলোচনা অনুষ্ঠানে ‘ভালোবাসা এমনি হয়’ সিনেমাটির পেছনের গল্প থেকে শুরু করে ছবির দৃশ্য ধারণ নিয়েও কথা বলেন তানিয়া আহমেদ। আলোচনায় আরও উপস্থিত ছিলেন ছবির কলাকুশলী, সাংবাদিক ও মিডিয়া ব্যক্তিত্বরা। ‘ভালোবাসা এমনি হয়’ ছবিটি নিয়ে আশাবাদী প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ইমপ্রেস টেলিফিল্ম। ইমপ্রেস টেলিফিল্মের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর বলেন, ‘২০১৭ সালে ইমপ্রেস টেলিফিল্মের প্রথম ছবি। ১০৫তম চলচ্চিত্র এটি। ইরফান সাজ্জাদ-বিদ্যা সিনহা মীম কিন্তু রিয়েলিটি শো-এর মাধ্যমে এত বড় একটা প্লাটফর্মে এসেছে। অন্যদিকে এই ছবির পরিচালক তানিয়া মিডিয়ায় পদার্পণ হেনোলাক্সের বিজ্ঞাপনের মডেল হিসেবে। এই ছবির তিনজনের পদার্পণের পেছনে চ্যানেল আইয়ের একটি ভূমিকা ছিল। ’ নির্মাতা বলেন, ‘সাগর ভাই, সিরাজ ভাই বরাবরই যেকোনো কাজে আমার অভিভাবকের মতো ছিলেন। আমি ইমপ্রেস টেলিফিল্মের কাছে কৃতজ্ঞ। এই ছবির ৮৫% চিত্রায়িত হয়েছে লন্ডনে। ’ ইরফান বলেন, আমি বলব, সম্পূর্ণ মন-প্রাণ দিয়ে আমি কাজটি করেছি। ছবি ভালোভাবে করার জন্য কারও ভালোবাসার কোনো কমতি ছিল না। অন্যদিকে মীম ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন,  ‘আমি প্রথমেই ধন্যবাদ জানাই ইমপ্রেস টেলিফিল্মকে। যেটি না থাকলে আমি আজকের মীম হয়ে উঠতাম না। এই ছবিটি একদমই অন্যরকম একটা গল্প। ঠাণ্ডার মধ্যে লন্ডনে শুটিং করেছি। ছোট ছোট কাপড় পরতে হয়েছে। কাজ করতে অনেক কষ্ট হয়েছিল। ’ এরপর মিশু সাব্বির কিছুটা আবেগতাড়িত হয়ে বলেন, ‘আমি আজ এই মিশু, সেটি ইমপ্রেস টেলিফিল্মের কারণেই। মিডিয়ায় শুরু হয়েছিল এই ইমপ্রেস টেলিফিল্মের মাধ্যমেই। আমি যে প্রথম সিনেমা ’লালটিপ’এ কাজ করেছি, সেটাও ইমপ্রেস টেলিফিল্মের ছবি। আজ আমি যেখানে যাই, সবাই আমাকে অনেক ভালো বলে। ইমপ্রেস টেলিফিল্ম আমাকে ভালো ব্যবহার করা শিখিয়েছে। এটা একটা স্কুল।

আমি এখান থেকে অনেক কিছু শিখেছি। আমি বলব, সবাই এই ছবিটি হলে গিয়ে দেখবেন। এরপর সবাইকে নিয়ে এই ছবিটির পোস্টার উন্মোচন করা হয়। চ্যানেল আই-এর চেতনা চত্বরে উড়ানো হয় বেলুন। এরপর সবাইকে সঙ্গে নিয়ে ডিজিটাল স্ক্রিনে বিলবোর্ড উন্মোচন করা হয়। এই ছবির ট্রেইলার একই সময়ে চ্যানেল আই- এর পর্দায় লাইভ দেখানো হয়। এই অনুষ্ঠানের পরিসমাপ্তি ঘটে উপস্থিত সবার চা-চক্রের মধ্য দিয়ে।