ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত হাবিপ্রবির এগ্রিবিজনেসের শিক্ষার্থীদেরঃ টানা আন্দোলনে অসুস্থ শিক্ষার্থী

0
259

হাবিপ্রবি প্রতিনিধি: হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের এগ্রিকালচার এন্ড  এগ্রিবিজনেস বিভাগের শিক্ষার্থীরা এগ্রিকালচার ডিগ্রীর দাবিতে গত ১২ দিন থেকেই অনির্দিষ্টকালের জন্য ক্লাস বর্জন কর্মসুচী পালন করে আসছে। তারই ধারাবাহিকতায় আজ ও শান্তি প্রিয় অবস্থান কর্মসূচী পালন করছিল। এ অবস্থায় বিভিন্ন লেভেলের দুইজন শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে পড়ে।

agb

প্রতিদিন কর্মসূচীতে এভাবেই দুই একজন অসুস্থ হয়ে পড়ছে।অসুস্থদের বিশ্ববিদ্যালয় মেডিকেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।তাদের একটাই কথা ,  দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত তারা ক্লাস, পরীক্ষায় ফিরবে না বলে ঘোষনা দিয়েছে। এদিকে তাদের আন্দোলনে উত্তাল হয়ে উঠেছে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস। তাদের এই আন্দোলনে বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যান্য অনুষদের শিক্ষার্থীরাও যোগ দিচ্ছে বলে দাবি করেন তারা।

আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, ২০১৩ সালে এই বিশ্ববিদ্যালয়ে এগ্রিকালচার এন্ড এগ্রিবিজনেস নামে প্রথম ব্যাচে শিক্ষার্থী ভর্তি করানো হয়। কিন্তু দুঃখের বিষয় হল, এখন পর্যন্ত এই বিষয়টি ইউজিসি কতৃক রেজিস্ট্রেশনই হয়নি। হঠাৎ কেন আন্দোলন জানতে চাইলে এই বিভাগের শিক্ষার্থীরা জানান, দেখুন আমরা খোজ খবর নিয়েছি, এই পর্যন্ত আমাদেরকে নিয়ে সরকারি কর্মকমিশনতো দূরের কথা, এমনকি কোন প্রাইভেট কোম্পানিও একটি জব সার্কুলার প্রকাশ করেনি। বাংলাদেশেতো আজকাল নতুন নতুন অনেক কর্মক্ষেত্র সৃষ্টি হচ্ছে। তো আপনাদের জন্য কিছু একটা কর্মক্ষেত্র সৃষ্টি হয়ে যাবে, এমন প্রশ্নের উত্তরে এক শিক্ষার্থী বলেন, আমরা বিসিএসে আবেদন করতে পারবনা, সরকারি কর্মকমিশন আমাদেরকে নিয়ে কোন জব সার্কুলার দিচ্ছে না, তো এই বিষয় নিয়ে পড়াশুনা করে লাভ কি? শিক্ষার্থীরা জানান, তারা ২০১৩ সাল থেকে প্রশাসনকে তাদের ডিগ্রির ব্যাপারে তাগিদ দিয়ে আসছে। কিন্তু প্রশাসন শুধু আশ্বাসেই দিচ্ছিল, চুড়ান্ত সিদ্ধান্তের ব্যাপারে তাদেরকে কিছুই জানানো হয়নি।

এই বিভাগের শিক্ষার্থীদের ১৮৩ ক্রেডিট পড়ানো হয়, যার মধ্যে ১৪৭ ক্রেডিটেই হল এগ্রিকালচার, আর বাদ বাকি পড়ানো হয় বিবিএ এর বিষয় সমূহ। তাদের দাবি হচ্ছে এগ্রিকালচারের ১৪৭ ক্রেডিট পড়েও, কেন আমরা নিবন্ধনহীন এগ্রিবিজনেস নাম নিয়ে ও এই বিষয়ে পড়াশুনা করব। আমাদের দাবি, আমাদের এগ্রিকালচার চাই। এগ্রিবিজনেসের দাবি ৮ জুনের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন তাদের দাবি মেনে না নিলে, পরবর্তীতে এই বিভাগের শিক্ষার্থীরা কঠোর কর্মসূচি ঘোষনা করবে বলে জানান।