এতিম শিশুদের পাশে হাবিপ্রবির শিক্ষার্থীরা

0
125

মহিউদ্দিন নুর, দিনাজপুর প্রতিনিধিঃ  ক্যাম্পাসের বিভিন্ন সংগঠন গুলো অনেক ধরনের সামাজিক সেবামূলক কাজ করে থাকে।কিন্তু এর মধ্যে এবার কিছুটা ব্যতিক্রম ধর্মী কাজ করে দেখাল বন্ধু প্রতিদিন , হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সদস্যরা। এতিম শিশুদের পাশে হাবিপ্রবির শিক্ষার্থীরা

দিনাজপুরের তথা বাংলাদেশের রাজনীতিক গৌরব, পাক-ভারত উপমহাদেশের বৃটিশ বিরোধী আন্দোলনের নেতা, ঐতিহাসিক তেভাগা আন্দোলনের জনক , ভাষা সৈনিক, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক হাজী মোহাম্মদ দানেশ  যার নামে এই বিশ্ববিদ্যালয় তার জন্মস্থান দিনাজপুরের সুলতানপুরে অবস্থিত হাজী দানেশ এতিমখানা ও হাজী দানেশের পথিকৃতি। নিজেদের দায়িত্ববোধ থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা সিদ্ধান্ত নেয়  এবার তারা হাজী মোঃ দানেশের জন্মস্থান ও   এতিম শিশুদের সাথে কিছুটা  সময় ব্যয় করবেন।

যে মহান মানুষটির নামে এই বিশ্ববিদ্যালয় তার নাম উজ্জ্বল করতে ও তার জন্মস্থানের মানুষদের জন্য কিছু করার লক্ষ্যে এই ধরনের কর্মসূচি হাতে নেন তারা ।  সিদ্ধান্ত মোতাবেক আজ দুপুরে শিশুদের  জন্য  কম্বল ,বিরিয়ানী,ভার্সিটির নাম সম্বলিত খাতা ও কলম নিয়ে রওনা হন তারা ।সেখানে পৌঁছেই  শিশুদের সাথে নিয়ে দুপুরের খাবার খাওয়া,     এরপর তাদের  সাথে অসাধারন কিছু সময় , এসব জিনিস পেয়ে মহাখুশি তারা । এর ফাকে বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক শিক্ষার্থীই আবার তাদের সাথে খেলায় মেতে উঠেন।অনেকেই আবার শিশুদেরকে হাজী মোঃ দানেশের জীবনি ও হাজী মোহাম্মদ দানেশ  বিশ্ববিদ্যালয়ে সম্পর্কে গল্প শুনান ।কেউ কেউ আবার নিজ হাতে অযত্নে পড়ে থাকা হাজী মোঃ দনেশের পথিকৃতি টা পরিষ্কার করেন। এরপর সবাই মিলে হাজী মোঃ দানেশের রুহের মাগফিরাত কামনা করে মোনাজাত করা হয় ।

এ সময় উপস্থিত ম্যানেজিং কমিটির সদস্যরা ,  এলাকার মেম্বার , চেয়ারম্যানসহ   গণ্য মান্য ব্যক্তিরা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের এ ধরনের কাজের ভূয়সী  প্রশংসা করেন। তারা বলেন এই প্রথম আমরা হাজী মোহাম্মদ দানেশ  বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদেরকে আমাদের মাঝে এভাবে পেলাম, এর আগে কেউ খোজ নেয়নি , কোন সংগঠন আসেনি আমাদের কাছে  ।

তবে এলাকার চেয়ারম্যান কিছুটা আক্ষেপ নিয়ে বলেন হাজী মোহাম্মদ দানেশের নামে এতোবড় প্রতিষ্ঠান কিন্তু তারা তার এলাকা ও আত্মীয় স্বজনের খোজ খবর রাখেনা বিশ্ববিদ্যালয়।তিনি বলেন দানেশ পরিবারের অনেকের অবস্থা এখন খারাপ, বিশ্ববিদ্যালয় চাইলেই তাদের জন্য চাকরির বেবস্থা করতে পারে, এ সময় অনেকেই আবেগতাড়িত হয়ে পড়েন। তারা বলেন আপনারা শুরু করলেন, এরপর থেকে আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যান্য সংগঠন ও শিক্ষার্থীদেরও পাশে পাবো আশা করি।

এসব কাজে উপস্থিত থেকে সার্বিক দিকনির্দেশনা প্রদান করেন ফিশারিজ বায়োলজি এন্ড জেনেটিক্স বিভাগের চেয়ারম্যান ও বন্ধু প্রতিদিনের উপদেষ্টা  ড. ইমরান পারভেজ , মার্কেটিং বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আবুল কালাম , সংগঠনের সভাপতি মুহিউদ্দিন নুর ও সাধারন সম্পাদক তারিকুল ইসলাম।

এসব কাজের পুর্নতা প্রদান করেন বন্ধু প্রতিদিন , হাবিপ্রবি শাখার সহ সভাপতি মোঃ প্রিন্স , যুগ্ন সাধারন সম্পাদক মোঃ রোহান , মারিয়া তুল জান্নাত মৌ , রেজওয়ানা করিম রূম্পা , সাংগঠনিক সম্পাদক মান্নান , বান্না এছারাও বন্ধু প্রতিদিন পরিবারের সোহেল,   শুভ , মারুফ ,সাইফুল, বাপ্পা , হানি , সুস্মিতা, সোহানা , সুহি , কানিজ ,সাথী,  মুন,মুয়াজ,আনোয়ার,সাইদ , নিউটন , বাদল, আল আমিন  সহ অনেকেই উপস্থিত ছিলেন। সব কিছু সুন্দর ভাবে সম্পন্ন হওয়ায় উপদেষ্টারা ও সভাপতি সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।