বাংলার যুবকেরা আলেমদের যথেষ্ট মহব্বত করে, মূফতী হাবিবুর রহমান মিসবাহ

0
79

এ দেশের যুবকরা আলেমদের সম্মান করে যথেষ্ট। ওদের মধ্যে চিন্তা ও দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন ঘটেছে। দিন বদলেছে। সময় পাল্টেছে। আমাদের মুরব্বীরা বহু কষ্ট
করে গেছেন দীনের জন্য। মূলত আমাদের দাওয়াতের পথ তাঁরাই সহজ করে দিয়ে গেছেন। তাঁদের অবদান অস্বীকার করার সাধ্য আছে কার? জীবনের সবটুকু অর্জন
ওয়াকফ করলেও তাঁদের ঋণ শোধ হবে না। তবে তাঁদের লি-অজহিল্লাহি খেদমতের প্রতিদান রব্বে কারীমের পক্ষ থেকে হয়তো পেয়েও গেছেন। লোকাল বাস, নৌকা,
লঞ্চ, আবার কখনো বা পায়ে হেঁটে দীনের দাওয়াত পৌঁছে দিয়েছেন দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে। চরোমানাইর দাদা হুজুর সৈয়দ এসহাক রহমাতুল্লাহি আলাইহির
ব্যাপারে শুনেছি- তিনি মাইক ব্যাটারী সাথে করে নিয়ে যেতেন। কোথাও কোথাও নিজেই লোকজন জড়ো করে নসিহত শুরু করে দিতেন। মসজিদে মসজিদে ঘুরে
বেড়াতেন আর নামাযের পর তালীম দিতেন। এরকম বহু বুজুর্গ নিজের জীবন বাজি রেখে এ দেশের জঙ্গল সাফ
করেছেন। বুজুর্গদের সাজানো বাগানে মালির দায়িত্ব পালন করছি আমরা। তাও বা কতোদূর পারছি? নাহ, যেভাবে
কোরবানী দেয়া দরকার সেভাবে পারছি না। এখন যুবকরা ৫/১০ কিলোমিটার দূর হতে মটরসাইকেল বহর দিয়ে রিসিভ
করে নেয়। মনে হয় মন্ত্রীর আগমন ঘটেছে। হাজার হাজার মানুষের জমায়েত হয় মাহফিলগুলোতে। দৃষ্টিনন্দন আয়োজন। বিগ বাজেটের ব্যবস্থাপনা। মটরসাইকেল বহর আর নারায়ে তাকবীর আল্লাহু আকবারের স্লোগানের সাথে পরিচিত সেই শুরু জমানা থেকে। কিন্তু এবার দেখলাম
ভিন্ন এক অভ্যর্থনা। মাহফিল পর্যন্ত গাড়ী যায় না। যুবকরা অটো রিক্সা প্রস্তুত রেখেছে। আমার অনীহা সত্বেও আমাকে রিক্সায় বসিয়ে ওরা সব পেছন পেছন হাঁটছে। তবে এবার শ্লোগান নয়, সবার মুখে লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহ’র জিকির! বেশ ভালোই লেগেছে। নতুনত্ব সবসময়ই উপভোগ্য। গিয়ে দেখি উজানীর আশেকে এলাহী
সাহেব হুজুর মুমিনের গুণাবলী নিয়ে বয়ান করতেছেন। তাই নিজেও শ্রোতা হয়ে গেলাম হুজুরের বয়ানের। বলছিলাম ১১/০১/১৮ ১ম মাহফিল কুমিল্লার মুরাদনগরের কাঁঠালিয়ার কথা। এদিন দ্বিতীয় মাহফিল ছিলো কুমিল্লা শহরের পাশের একটা
এলাকায়। এর আগেরদিন ১০/০১/১৮ মাহফিল ছিলো লক্ষ্মীপুরের মিত্রের বাজার। বিশাল আয়োজন। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে মাইক নষ্ট হয়ে যাওয়ায় সংক্ষিপ্ত বয়ান
করে মুনাজাত দিয়ে চলে আসি। উভয়দিনের কমিটিত্রয়, ওলামায়ে কেরাম ও যুবকদের ব্যবহার ও আতিথেয়তা ছিলো
সন্তুষ্ট হবার মতো।

(হুজুরের ফেসবুক হতে সংগ্রহ)