আরাকানী যোদ্ধারা সন্ত্রাসী নয় বীর মুজাহিদ;বীর মুক্তিযোদ্ধা

0
64

লেখকঃমূফতী হাবিবুর রহমান মিসবাহ। আরাকানের স্বাধীনতা আন্দোলনে মাজলূমরা অস্ত্র তুলে নিলে যদি জঙ্গি হয়, তাহলে বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধাদের কী বলবেন?বাংলাদেশের মানুষ পাকিস্তানীদের অত্যাচার হতে মুক্তির জন্য যুদ্ধ করে যদি মুক্তিযোদ্ধা হয়, তাহলে আরাকানী যোদ্ধারাও বীর মুজাহিদ; বীর মুক্তিযোদ্ধা।
যে সমস্ত অপদার্থরা বার্মিজ বৌদ্ধ সন্ত্রাসীদের নিন্দা না করে আরাকানী মাজলূম মুক্তিযোদ্ধাদের জঙ্গী বলে অপবাদ দিচ্ছে, ওরা সময়ের শ্রেষ্ঠ গাদ্দার।এমন মন্তব্য করে ওরা পরোক্ষভাবে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধকেও কলঙ্কিত করেছে।আমরা সবসময় মাজলূমের পক্ষে এবং জালিমের বিরুদ্ধে বলবোই। কিন্তু যারা সন্ত্রাসীদের পক্ষ নিয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের বিপক্ষে কথা বলে, ওরা আমাদের বন্ধু হতে পারে না।
আসলে ইসলাম বিদ্বষীরা যে সন্ত্রাসবাদে বিশ্বাসী তার আরো একটি প্রমাণ হলো ‘কাশ্মীর ও আরাকান’ মুক্তিযুদ্ধের বিরুদ্ধে ওদের অবস্থান। আর ভূখন্ড দুটি মুসলিম অধ্যুষিত হওয়াতেই ওরা ‘কাশ্মীর ও আরাকান’ -এর বিরোধিতা করছে।
আমাদের দুর্ভাগ্য হলো- এ দেশ একটি স্বাধীনতা অর্জিত দেশ হওয়া সত্যেও এ দেশের সরকার স্বাধীনতা প্রত্যাশিত আরেকটি মাজলূম দেশের দু:খ বুঝতে পারলো না। পারলো না তাদের পক্ষে শক্ত অবস্থানের কথা জানিয়ে দিতে। তবে পেরেছে! মদিনা সনদের দোহাই দিয়ে ৯২% মুসলমানের দেশের সরকার হয়ে কাশ্মীরের বিরুদ্ধে স্পষ্ট অবস্থান এবং আরাকানের অসহায় রোহিঙ্গা নারী, শিশু, বৃদ্ধ ও আহতরা যেনো বাংলাদেশে প্রবেশ করতে না পারে সে ব্যাবস্থা করতে।