৯ বছরে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্নস্থান থেকে ৪৫৭ জন নিখোঁজ

0
53

সৌরভ কুমার ঘোষ : গত ৯ বছরে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্নস্থান থেকে ৪৫৭ জন নিখোঁজ হয়েছে বলে অভিযোগ ওঠে। এর মধ্যে ৩৩২ জনের এখনো খোঁজ  মেলেনি। এর মধ্যে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পরিচয়ে বেশ কয়েকজনকে তুলে নেয়া হয়েছে। চলতি বছরের প্রথম সাত মাসে নিখোঁজ ৬০ জনের মধ্যে ৩২ জনের এখনো হদিস মেলেনি। বাকি ২৮ জনের মধ্যে সাতজনের লাশ পাওয়া গেছে। তিনজন ফিরে এসেছেন এবং ১৮ জনকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী গ্রেপ্তার দেখিয়েছে। গত বছর নিখোঁজ হয় ৫৫ জন। তাঁদের মধ্যে আটজনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে, সাতজনকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে, ফিরে এসেছেন পাঁচজন। এখনো নিখোঁজ রয়েছেন ৩৫ জন। বাংলাদেশ মানবাধিকার সংস্থা সূত্রে এ তথ্য জানাগেছে।

আরেক মানবাধিকার সংস্থা অধিকারের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০১৩ থেকে ২০১৬ সালের নভেম্বর পর্যন্ত গুম হয়েছেন ১৬৪ জন। এর মধ্যে ২০১৩ সালে ৫৩, ২০১৪ সালে ৩৯ ও ২০১৫ সালে ৩৮ জন গুম হয়েছেন। চলতি বছরের ১১ মাসে নিখোঁজ হয়েছেন ৭০ জন, যাঁদের মধ্যে ৩৪ জনকে গুম করার অভিযোগ আছে। ঘটনার বিশ্লেষণে দেখা গেছে, সাম্প্রতিক সময়ে আবার অপহরণ, গুম ও গুপ্তহত্যার ঘটনা বেড়ে গেছে। সর্বশেষ গত সোমবার নাটোর পৌর যুবলীগের তিন নেতাকর্মীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলা থেকে। তাঁরা হলেন নাটোর সদর উপজেলার কানাইখালী এলাকার রেদওয়ান আহমেদ সাব্বির (৩২), আবু আব্দুল্লাহ (৩০) ও সোহেল আহমেদ (৩২)। সাব্বির নাটোর পৌর যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য। বাকি দুজন পৌর যুবলীগের কর্মী। ঘটনার দুই দিন আগে তাঁরা নিখোঁজ হন।

গত ২৯ নভেম্বর থেকে ৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত ঢাকা ও পাবনায় আট শিক্ষার্থী নিখোঁজ হয়েছেন। তাঁদের নিখোঁজ রহস্যের কিনারা এখনো হয়নি। গত ৪ ডিসেম্বর জাতীয় প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে স্বজনদের ফিরে পাওয়ার আকুতি জানিয়েছে ২০টি পরিবার। এর আগে ২০১৩ সালের ডিসেম্বরে রাজধানী থেকে নিখোঁজ হয়েছেন সেই ২০ জন। দিন, মাস, বছর গড়ালেও নিখোঁজ ব্যক্তিদের খুঁজে বের করতে পারছে না আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। মাঝেমধ্যে নিখোঁজ ব্যক্তিদের মধ্যে কারো কারো লাশ উদ্ধার হয়। তবে সেই হত্যার রহস্যও অজানাই থেকে যাচ্ছে। অনেক সময় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বিরুদ্ধেই আটকের অভিযোগ উঠছে, তবে  সেই অভিযোগেরও কোনো সুরাহা হয় না।

ভুক্তভোগীরা অভিযোগ করছে, পুলিশ, র‌্যাবসহ অন্য সংস্থাগুলো ঘটনার কার্যকর তদন্তই করে না। মানবাধিকারকর্মী ও অপরাধ বিশ্লেষকরা বলছেন, একের পর এক মানুষ নিখোঁজ হয়ে যাওয়া ও নিখোঁজ ব্যক্তিদের লাশ উদ্ধারের ঘটনার সুরাহা না হওয়া চরম মানবাধিকার লঙ্ঘন। এতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ব্যর্থতা, জবাবদিহির অভাব, মানবিক বিপর্যয়সহ অনেক খারাপ দিক সামনে চলে আসছে, যা মানবাধিকার ও অপরাধের ক্ষেত্রে প্রভাব ফেলছে। স্বাধীন বিচার বিভাগীয় কমিশন গঠনের মাধ্যমে প্রতিটি ঘটনা তদন্তের সুপারিশ করছেন সংশ্লিষ্টরা। এ ব্যাপারে পুলিশের অতিরিক্ত আইজিপি ফাতেমা বেগম বলেন, অনেকইে দেখি পুলিশের বিরুদ্ধে পত্র-পত্রিকায়, সভামঞ্চে অভিযোগের কথা বলে, কোনো অপহৃত বা নিখোজ হওয়া ব্যাক্তিকে উদ্ধারের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশ যদি অবহেলা করে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার বিধান আছে। কিন্তু কেউ কোনো সুনির্দিষ্ট অভিযোগ না করে ঢালাও অভিযোগ করলে আমাদের কিছু করার থাকেনা।

এ ব্যাপারে মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থার চেয়ারম্যান অ্যাডভোটে সিগমাহুদা বলেন, পুলিশের বড় কর্তারা বড়বড় বুলি আওড়ালেও বাস্তবের চিত্র ভিন্ন। তিনি বলেন, কোনো নিখোঁজ ব্যক্তির ব্যাপারে থানায় অভিযোগ করতে গেলে থানা পুলিশ অভিযোগ আমলে নেয়না। তারা একটি জিডি করেই দায়িত্ব সারে। এক দু’টো বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া এসব অভিযোগ থানায় পড়ে থাকে বছরেরর পর বছর। এ ব্যাপারে সরকারের সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা থাকা উচিত। তিনি আরো বলেন, একজন এসআই বা ইন্সপেক্টরের ইচ্ছা অনিচ্ছার উপর এত বড় গুরুদায়িত্ব ছেড়ে দেয়া ঠিক নয়। উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের প্রপার নজরদারি না থাকায় পরিস্থিতির দিন দিন অবনতি ঘটছে।