বিজিবির আনুগত্য প্রশ্নাতীত: প্রধানমন্ত্রী

0
61

সময়ের পাতা ডেস্ক: বর্ডার গার্ড অব বাংলাদেশের (বিজিবি) বিশেষ দরবারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বিজিবির সদস্য হিসেবে আপনাদের আনুগত্য ও বিশ্বস্ততা প্রশ্নাতীত। কর্মকর্তা ও সদস্যদের মধ্যে পারস্পরিক আস্থা ও শ্রদ্ধাবোধ, শৃঙ্খলাবোধ, মানবিকতা এবং সর্বোপরি পারস্পরিক সহানুভূতিশীলতাই এই বাহিনীর বন্ধন দৃঢ়তর করবে।
মঙ্গলবার রাজধানীর পিলখানায় বিজিবি সদর দপ্তরের বীর উত্তম ফজলুর রহমান খন্দকার মিলনায়তনে বিশেষ দরবারে প্রধান অতিথির ভাষণে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।
বিজিবির সদস্যদের দক্ষতা বৃদ্ধি, পেশাদারি তৈরি, জওয়ানদের আবাসনসহ সার্বিক উন্নয়নে তাঁর সরকার অনেক কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বিজিবির উন্নয়নে গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপের খ-চিত্র তুলে ধরেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিজিবির সদর দপ্তর পিলখানার সঙ্গে রিজিয়ন সদর ও সেক্টর সদরের ডিজিটাল কানেকশন প্রতিষ্ঠিত হওয়ায় প্রতিনিয়ত ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সার্বিক পরিস্থিতি মনিটরিং করা হচ্ছে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিজিবির জন্য প্রথম ভাসমান বিওপি নির্মাণ করে দুর্গম সুন্দরবন রক্ষার ব্যবস্থা করেছি। আরও একটি ভাসমান বিওপি শিগগিরই বিজিবিতে যুক্ত হচ্ছে।
দরবারে অংশগ্রহণকারী বিজিবি সদস্যদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, পুনর্গঠনের পর বিজিবি সদর দপ্তরে এটা আমার চতুর্থ দরবার। এখানে এসে নতুন পরিবেশ ও সুশৃঙ্খল আয়োজনে আমি মুগ্ধ। ভবিষ্যতে সবাই বাহিনীর নিজস্ব শৃঙ্খলার বিষয়টি ভালোভাবে জেনে নেবে এবং চর্চা করবে।
শেখ হাসিনা বলেন, গত জাতীয় নির্বাচনের পূর্বে ও পরবর্তী সময়ে রাজনৈতিক সহিংসতা, সন্ত্রাসী কর্মকা- প্রতিরোধ, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ এবং জনসাধারণের জানমাল রক্ষায় আপনারা দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিয়েছেন। একাত্তরের পরাজিত শক্তি ও তাদের দোসরদের পরিকল্পিত টানা অবরোধে গাড়ি ভাঙচুর এবং চলন্ত গাড়িতে পেট্রলবোমায় জীবন্ত মানুষকে পুড়িয়ে হত্যাসহ দেশ অচলের ষড়যন্ত্র চালিয়েছিল। আপনারা অক্লান্ত পরিশ্রম করে তা বানচালে সক্ষম হন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গা সমস্যা, মিয়ানমার সীমান্তে উত্তেজনা, রামুর বৌদ্ধপল্লির নিরাপত্তা ও পুনর্বাসন, পার্বত্য এলাকায় অস্থিতিশীল পরিস্থিতি, ছিটমহলবাসীকে পুনর্বাসনে আপনাদের পদক্ষেপ বিজিবির সুনাম ও মর্যাদা বৃদ্ধি করছে। প্রধানমন্ত্রী প্রত্যেক বিজিবি সদস্যকে দেশপ্রেম, সততা ও শৃঙ্খলার সঙ্গে নিজ নিজ দায়িত্ব পালনের আহ্বান জানান। তিনি বলেন, বিজিবির কল্যাণ ও উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে তাঁর সরকারের সব রকম সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে।
এর আগে প্রধানমন্ত্রী বিজিবি সদর দপ্তরের বীর উত্তম আনোয়ার হোসেন প্যারেড গ্রাউন্ডে বিজিবি দিবস উপলক্ষে কুচকাওয়াজ পরিদর্শন ও সালাম গ্রহণ শেষে বিজিবি সদস্যদের উদ্দেশে বক্তৃতা করেন।