দ. এশিয়ার অগ্রযাত্রায় দারিদ্র্যই বড় প্রতিবন্ধকতা: প্রধানমন্ত্রী

0
33

সময়ের পাতাঃ  দক্ষিণ এশিয়ার অগ্রযাত্রায় দারিদ্র্যই সবচেয়ে বড় প্রতিবন্ধকতা উল্লেখ করে এ অঞ্চলের ব্যবসা-বাণিজ্য সম্প্রসারণে পারস্পারিক সহযোগিতা বাড়ানোর আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সুইজারল্যান্ডের দাভোসে বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামের সম্মেলনের পার্শ্ব বৈঠকে সার্কভুক্ত দেশগুলোর নেতা ও ব্যবসায়ী প্রতিনিধিদের মধ্যে এক আলোচনায় এ কথা বলেন তিনি।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
ফাইল ছবি

এর আগে ‘প্রতিবেদনশীল এবং দায়িত্বশীল নেতৃত্ব’ প্রতিপাদ্যে এবারের সম্মেলনে যোগ দেন বিভিন্ন দেশের সরকার প্রধান, রাষ্ট্রপ্রধান, বিশেষজ্ঞসহ প্রায় দুই হাজারেরও বেশি প্রতিনিধি। মঙ্গলবার সুইজারল্যান্ডের দাভোসে বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামের সস্মেলনের উদ্বোধনী দিনে ভারত, বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার প্রতিনিধিদের মধ্যে বৈঠকে অংশ নেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি দক্ষিণ এশিয়ার বাণিজ্য সম্প্রসারণের গুরুত্ব তুলে ধরেন।

একই বৈঠকে অর্থনৈতিক কাঠামো পুনর্গঠনের মাধ্যমে, সার্কভুক্ত দেশগুলোর অর্থনীতিতে ভারসাম্য আনার ওপর গুরুত্বারোপ করেন শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহে। এর আগে মঙ্গলবার বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামের প্রতিষ্ঠাতা ও এর নির্বাহী সভাপতি ক্লাউস শুয়াবের বক্তৃতার মধ্য দিয়ে শুরু হয় সম্মেলনের মূল পর্ব। ৪৭তম এ বার্ষিক সম্মেলনের উদ্বোধনী বক্তা হিসেবে ভাষণ রাখেন, চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং। বিশ্ব অর্থনীতি পুনরুদ্ধার ও মুক্ত বাণিজ্য অব্যাহত রাখতে অবদান রাখার প্রতিশ্রুতি দেন তিনি।

এবারের সম্মেলনে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সরকার প্রধান, ব্যবসায়ী নেতা ও বুদ্ধিজীবীসহ আড়াই হাজার মানুষ যোগ দেবেন। জোটের সদস্যরাষ্ট্র না হলেও; বিশেষ অতিথি হিসেবে সম্মেলনে যোগ দিয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি দাভোসে বিভিন্ন সেশন ও সেমিনারে অংশগ্রহণের পাশাপাশি বিভিন্ন দেশের ব্যবসায়ী নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন।

এদিকে, ডব্লিউইএফ-এর এই কর্মকর্তা জানালেন, বৈশ্বিক সহযোগিতা, বাজার সম্প্রসারণ ও মুক্ত বাণিজ্য বিশ্ব অর্থনীতির প্রধান হাতিয়ার। ডব্লিউইএফ পরিচালনা পর্ষদের সদস্য ফিলিপ রোজলার বলেন, ‘আমরা দেখছি, দিনদিন সংরক্ষণবাদের দিকে ঝুঁকে পড়া দেশের সংখ্যা বাড়ছে। কিন্তু এটি বিশ্ব অর্থনীতির জন্য অনেক বড় হুমকি। বিশ্বায়ন কোনো অভিশাপ নয় যে, একে রোধ করতে হবে। আশা করি এবারের সম্মেলনে বিশ্বনেতারা বৈশ্বিক সহযোগিতা রক্ষার বিষয়ে কার্যকর আলোচনায় সক্ষম হবেন।’

বিশ্ব অর্থনীতির অন্যতম শক্তি যুক্তরাষ্ট্রের পরবর্তী প্রেসিডেন্ট ক্ষমতা গ্রহণের আগমুহূর্তে, বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামের এবারের সম্মেলনে সবচেয়ে আলোচিত-সমালোচিত বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে ট্রাম্পের সংরক্ষণবাদের দিকে ঝোঁকার পরিকল্পনা।