নিজের মন্তব্য নিয়ে মেয়র আনিসুলের দুঃখ প্রকাশ

0
35

নিউজ ডেস্কঃ চিকুনগু‌নিয়া এবং ডিএনসিসির কার্যক্রম নিয়ে মন্তব্য করার একদিন পরেই দুঃখ প্রকাশ করলেন মেয়র আনিসুল হক। শনিবার গুলশান-২ এ ডিএনসিসি কার্যালয়ের সামনে থেকে মশক নিয়ন্ত্রণে সচেতনতামূলক র‍্যালির শুরুতে শুক্রবারের বক্তব্যের জন্য দুঃখ প্রকাশ করেন মেয়র।


news5

শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে ঢাকা উত্তর সিটির মেয়র আনিসুল হক বলেন, ‘কোন ধরনের মহামারির জন্য সিটি করপোরেশন দায়ী নয়। তিনি এও বলেন, ‘বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে মশারি টানানো মেয়রের পক্ষে সম্ভব না’। এমন মন্তব্যেরে পর ব্যাপক সমালোচনার মুখের পড়েন আনিসুল হক।

গত কয়েক মাস ধরে ঢাকায় ব্যাপকভাবে চিকুনগুনিয়া রোগের বিস্তার হয়েছে। এই রোগ হলে ভুক্তভোগীর জ্বর ছাড়াও ব্যাপক গা ব্যথা হয়। এতে মৃত্যু না হলেও প্রচণ্ড ব্যথার কারণে অতিষ্ঠ হয় আক্রান্তরা।

চিকুনগুনিয়ার বিস্তারের জন্য খোদ স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম সিটি করপোরেশনকে দায়ী করেছেন। তার অভিযোগ, করপোরেশনের মশা নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রম পর্যাপ্ত নয়। স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক স্বপনও সিটি করপোরেশনের ওপর অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

মেয়র দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, ‘আমার বক্তব্য যেভাবে প্রকাশিত হয়েছে, সেটি আমার বোধগম্য নয়। আমি বলতে চেয়েছি, কারো বাড়ির ভেতরে ঢোকার অধিকার আমাদের সেভাবে নেই। একজন সাংবাদিক বন্ধু একটি প্রশ্ন করেছিলেন, আমরা মশারি নিয়ে সচেতনতা তৈরি করছি কি না? আমি আমাদের সচেতনতামূলক পোস্টারে মশারির ছবি দেখিয়ে ওই কথা বলেছিলাম। কিন্তু যেভাবে বলেছি, তা ঠিকভাবে বলতে পারিনি—হতে পারে।’

মেয়র বলেন, ‘প্রতিটি ওয়ার্ডে একেক দিন এরকম বৃহৎ পরিসরে সচেতনতামূলক কার্যক্রম চলবে। মশক নিধন কার্যক্রমে কেউ অবহেলা করলে সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

পাঁচ দিন পর পর মশা নিধনের ওষুধ প্রয়োগের কথা থাকলেও তিন দিন পর পর প্রয়োগ করা হচ্ছে বলে মেয়র জানান।

এই মশক নিধন র‌্যালিতে ডিএনসিসির কর্মকতা-কর্মচারী ছাড়াও স্থানীয় সংসদ সদস্য, কাউন্সিলর, এলাকাবাসীসহ বিভিন্ন শ্রেণির মানুষ অংশ নেন।