মেসি-বার্সা পরিস্থিতি দূষিত করতে চায়

0
39

ক্যারিয়ারের প্রথমার্ধটা একটা ‘অপবাদ’ নিয়ে কাটাতে হয়েছে লিওনেল মেসিকে। মেসি নাকি যতটা কাতালান, ততটা আর্জেন্টাইন না! ক্যারিয়ারের শুরু, বিকাশ সবকিছুই বার্সেলোনাতে হয়েছে আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ডের। তাই বার্সেলোনা ও মেসি অবিচ্ছেদ্য বলেই জানে সবাই। কিন্তু নতুন চুক্তি নিয়ে চলা নাটকে সে সম্পর্কটাই এখন প্রশ্নের মুখে। তবে বার্সেলোনার ক্রীড়া পরিচালকের দাবি এ সবই চক্রান্ত, ইচ্ছে করেই ঝামেলা সৃষ্টি করা হচ্ছে মেসি-বার্সেলোনা সম্পর্কে।মেসি

ক্লাবের শীর্ষ খেলোয়াড়দের চুক্তি মানেই সংবাদমাধ্যম সরগরম। কিছুদিন আগে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর চুক্তি নিয়েও অনেক আলোচনা হয়েছে। বার্সেলোনার নেইমার ও লুইস সুয়ারেজদের নতুন চুক্তির আগেও কম গুঞ্জন শোনা যায়নি। সবই উড়ে গেছে দুই তারকার চুক্তি স্বাক্ষরের পর। তবে মেসির চুক্তি স্বাক্ষর নিয়ে নাটকটা একটু বেশি লম্বা হচ্ছে। গত মৌসুমে নতুন চুক্তি স্বাক্ষরের কথা থাকলেও সেটা এখনো আলোর মুখ দেখেনি। এর মাঝে আগুনে ঘি ঢাললেন ক্লাবের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা অস্কার গ্রাউ। বলে বসলেন—মেসির বেতন নতুন করে নির্ধারিত করার সময় একটু ‘বিবেচনা বোধ’ মাথায় রেখেই করা উচিত।
খেলোয়াড়দের বেতনের অঙ্কটা মাত্রাতিরিক্ত হয়ে যাওয়ার দিকে ইঙ্গিত করেই গ্রাউ সে কথা বলেছিলেন। গত মৌসুমেই নির্ধারিত সীমা অতিক্রম করেছিল বার্সেলোনার বেতনের অঙ্ক। কিন্তু গ্রাউয়ের এ মন্তব্য খেপিয়ে তুলেছে সবাইকে। স্ট্রাইকার সুয়ারেজ তো কোনো রাখঢাকই করেননি, ‘মেসির ক্ষেত্রে উচিত সোজা নতুন চুক্তি দেওয়া, বিবেচনাবোধ নিয়ে কথা বলা না!’
বার্সেলোনার ক্রীড়া পরিচালক রবার্ট ফার্নান্দেজ অবশ্য পরিস্থিতি শান্ত করেছেন সেই চিরচেনা উপায়ে, ‘এটা প্রশ্নাতীত যে, লিওই বিশ্বের সেরা খেলোয়াড়। এটাই বাস্তবতা। লিও দুই, তিন, চার কিংবা পাঁচ বছর আগের তুলনায় আরও ভালো খেলছে। বোঝাই যায় সে দিন দিন আরও ভালো হবে এবং নিজের মতো খেলবে।’ এমন একজনকে তো যেকোনো মূল্যে দলে রাখতেই চাইবে বার্সেলোনা। ফার্নান্দেজও জানাচ্ছেন নতুন চুক্তি খুব দ্রুতই হবে, ‘আশপাশের কথাবার্তায় কান না দেওয়াটাই ভালো, এ ব্যাপারে অনেক কথাই শোনা যাচ্ছে। অনেক মানুষই চাচ্ছে পরিস্থিতিটা দূষিত করতে। কিন্তু আমরা অনেক দিন ধরেই এ নিয়ে কাজ করছি এবং আমরা শান্তই আছি।’
শুধু মেসি নন, বার্সার সঙ্গে নতুন চুক্তির অপেক্ষায় আছেন আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা, ইভান রাকিটিচ, মার্ক টের স্টেগেনও। এঁদের ক্ষেত্রেও বেতনের অঙ্ক মেলানো কঠিন হবে কাতালান ক্লাবের জন্য। তবে ফার্নান্দেজ নিশ্চিত শেষ পর্যন্ত বার্সার ‘সুখী পরিবার’ সুখীই থাকবে, ‘আমার মাথা ঠান্ডা আছে। মাসচেরানো, নেইমার ও বুসকেটসের চুক্তির সময়ও আমার মাথা ঠান্ডা ছিল। ইনিয়েস্তা, ইভান, মার্ক ও লিওর ক্ষেত্রেও আমি আত্মবিশ্বাসী যে ওরা আমাদের সঙ্গেই থাকবে। আমি নিশ্চিত এ চারজন বার্সেলোনাতেই থাকবে।’
‘ফেয়ার প্লে’র নিয়ম অনুযায়ী ক্লাবগুলো তাঁর মোট বাজেটের ৭০ শতাংশের বেশি খেলোয়াড়দের বেতনের পেছনে ব্যয় করতে পারবে না। নেইমার-সুয়ারেজের বেতন এখন যেখানে গেছে, সে তুলনায় মেসির বেতন বাড়াতে গেলেই নাকি এই নীতির লঙ্ঘনের শঙ্কা দেখা দিয়েছে। আরও বাকিদের বেতনও তো বাড়াতে হবে। এ নিয়েই নাকি জটিলতা!