টাইব্রেককে পাখির চোখ করে মিক্সড ফাইনালে সানিয়ারা

0
13

অনলাইন ডেস্কঃ লিয়েন্ডার পেজ। রোহন বোপান্না। পূরব রাজা। দ্বিবীজ শরণ। জিল দেশাই। সিদ্ধান্ত বানথিয়া। সিনিয়র-জুনিয়র, ডাবলস-মিক্সড ডাবলস-সিঙ্গলস মিলিয়ে সব ভারতীয়ের অস্ট্রেলীয় ওপেন থেকে ছুটি হয়ে গেলেও টুর্নামেন্টের শেষ দিন অবধি সানিয়া মির্জা শুধু টিকেই নেই। সপ্তম গ্র্যান্ড স্ল্যাম খেতাবের দোরগোড়ায়। রবিবার সানিয়া-ইভান ডডিগের ইন্দো-ক্রোট দ্বিতীয় বাছাই জুটি রড লেভার এরিনায় মিক্সড ডাবলস ফাইনাল খেলবে অবাছাই মার্কিন-কলম্বিয়ান টিম অ্যাবিগেল স্পিয়ার্স-খুয়ান সেবাস্তিয়ান কাবালের বিরুদ্ধে।টুর্নামেন্টের শেষ

শুক্রবার মেলবোর্ন পার্কের সেন্টার কোর্টে দিনের প্রথম ম্যাচে সানিয়ারা মিক্স়ড ডাবলস সেমিফাইনালে স্থানীয় অস্ট্রেলীয় জুটি সামান্থা স্তোসুর-স্যাম গ্রথকে যে ভঙ্গিতে ৬-৪, ২-৬ (১০-৫) হারালেন, তাতে ফাইনালে তাঁরাই ফেভারিট। এ দিন ম্যাচ শেষে সানিয়া সাফ বলেন, ‘‘দ্বিতীয় সেটে ২-৫ পিছিয়ে যখন আমার সার্ভ শুরু করব, ইভানকে বললাম, এই গেমটা ধরে রাখলেও তো পরের গেমে স্যামের ১২৫ মাইলের সার্ভিস রিটার্ন করতে হবে। যতই বলের লাইনে ঠিক যাই না কেন, একজন মেয়ের জন্য

সার্ভগুলো একটু বেশিই স্পিডের। তার চেয়ে চলো, টাইব্রেকে ওর দু’টো মাত্র সার্ভ মোকাবিলা করি।’’ সুপার টাইব্রেকে সত্যিই সানিয়ারা প্রথম ছ’টা পয়েন্ট জিতে ৬-০ এগিয়ে গেলে তার পরে আর ঘরের কোর্টে দর্শক সমর্থন নিয়েও অস্ট্রেলীয় জুটির পক্ষে ম্যাচ বার করা সম্ভব হয়নি।

সানিয়ার এমন গেমপ্ল্যানে যে ডডিগও চমকে গিয়েছিলেন, সেটা তাঁর কথায় পরিষ্কার। ডাবলস-মিক্সড ডাবলস মিলিয়ে হাফডজন গ্র্যান্ড স্ল্যাম চ্যাম্পিয়ন সানিয়ার পাশে খেলতে কেমন লাগে প্রশ্নের উত্তরে ডডিগ বলছেন, ‘‘সত্যি কথা কী, একটু চাপই লাগে।’’ গত বছর ফরাসি ওপেন ফাইনালে লিয়েন্ডার-হিঙ্গিসের কাছে হারার পরে সানিয়া-ডডিগের এটা দ্বিতীয় গ্র্যান্ড স্ল্যাম। যেটায় তাঁরা উঠলেন আগের রাউন্ডেই লিয়েন্ডার-হিঙ্গিস বধকারী স্তোসুরদের হারিয়ে। তা সত্ত্বেও ডডিগ বলেন, ‘‘প্যারিসে আমরা অল্পের জন্য হেরেছিলাম। সানিয়া তাই এখানে সেমিফাইনালে ওই হারের বদলা নিতে চেয়েছিল। কিন্তু সুযোগ এল না। তবে এ বার ফাইনালে আমাদের জুটি চ্যাম্পিয়নের ট্রফি যাতে হাতে ধরতে পারে তার জন্য আমার সব এনার্জি ওকে দেব।’’