প্রতারক সাংবাদিক মনিরুলের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশ করায় সাপাহারে সাংবাদিক প্রদীপ সাহা’র নামে মিথ্যা মামলা

0
66

মোঃখালেদ বিন ফিরোজ,ডেস্কঃনওগাাঁর সাপাহারে বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশের জের ধরে প্রেসক্লাব সদস্য সাংবাদিক প্রদীপ সাহার বিরুদ্ধে আদালতে মিথ্যে মামলা দায়ের করা হয়েছে।মামলাটি দায়ের করেছেন উপজেলার ইসলামপুর গ্রামের হযরত আলীর পুত্র প্রতারক মনিরুল ইসলাম।সাংবাদিক মনিরুল ইসলাম দীর্ঘদিন সন্ধ্যানী লাইফ ইন্সুরেন্স সাপাহার উপজেলার শাখা ব্যবস্থাপক হিসেবে কর্মরত ছিলেন।অনুসন্ধানে জানা গেছে, মনিরুল ইসলামের বিরুদ্ধে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আলহাজ্ব ওমর আলী, ওয়াজের আলী, স্বপন পাল সহ শতাধীক ব্যক্তির নিকট হতে ভুয়া রশিদের মাধ্যমে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়।পরবর্তীতে বিষয়টি জানা জানি হলে প্রতারক মনিরুল গ্রাহকদের ভুয়া রশিদের মাধ্যমে নেয়া প্রিমিয়ামের টাকা ফেরত দেয়ার টালবাহানা করে কাল ক্ষেপন করতে থাকে ফলে সম্প্রতি তার বিরুদ্ধে ভুক্তভোগী গ্রাহক তাদের কষ্টের জমানো টাকা ফেরত চেয়ে এবং তার শাস্তির দাবীতে উপজেলা চত্ত্বরের সামনে এক মানববন্ধন করেন।যা জাতীয় দৈনিক প্রথম আলো, জনকন্ঠ, সহ বেশ কিছু পত্রিকায় সংবাদটি প্রকাশ হয়।এ সংক্রান্ত বিষয়ে সাংবাদিক প্রদীপ সাহা পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ করলে মনিরুল তার বিরুদ্ধে ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে দেখে নেয়ার হুমকী প্রদান করলে তাৎক্ষনিক প্রদীপ সাহা সাপাহার থানায় একটি জিডি করেন যার যার নং-৯৩৮, তাং ২৪-০৬-২০১৭ ইং।
এমতাবস্থায় কিছুদিন পূর্বে উপজেলা সদরের সাহাপাড়ার হত দরিদ্র সুনিল সাহার মেয়ে টুম্পা সাহাকে প্রতারণার ফাঁদে ফেলে মাসে ১০/১২ হাজার টাকা বেতনে নওগাঁয় প্রসাধনী কোম্পানীতে চাকুরী দেয়ার নাম করে গত ২২মে এফিডেভিট ষ্ট্যাম্পে টুম্পার স্বাক্ষর করিয়ে নেয়।তার স্ত্রী, ২টি পুত্র সন্তান থাকার পরেও টুম্পা সাহাকে এফিডেভেটিরে মাধ্যমে নওগাঁ কোর্টে বিবাহ করেছে বলে এলাকায় প্রচার করতে থাকে। বিপদে পড়ে ২৫ মে দরিদ্র পিতা সুনিল সাহা বিষয়টি এলাকার অভিজ্ঞ ব্যক্তি এমনকি এলাকার জাতীয় সংসদ সদস্য বাবু সাধন চন্দ্র মজুমাদার এমপির স্মরনাপন্ন হন এবং অভিজ্ঞ ব্যক্তিদের পরামর্শে গত ১৮জুন টুম্পা সাহা নিজেই নওগাঁ কোর্টে গিয়ে নোটারী পাবলিকের কার্যালয়ে উপস্থিত হয়ে তাকে চাকুরী দেয়ার কথা বলে তার স্বাক্ষর ও ছবি নেয়ার বিষয়ে মনিরুলের ২২ মের ৪৬৬ নং ক্রমিকের এফিডেভিট ষ্ট্যাম্পের কথাগুলি সম্পুর্ন  করে ৮২৬ নং ক্রমিক অপর একটি এফিডেভিট করেন।এর পর ঘটনাটি জানা জানি হলে প্রতারক মনিরুল টুম্পা সাহাকে ২য় স্ত্রী হিসেবে দাবী করে তার বাড়ীতে গিয়ে পিতা সুনিল সাহা ও মাতা পুর্নিমা সাহাকে বিভিন্ন হুমকী প্রদান করেন এবং সাংবাদিক প্রদীপ সাহাকে শত্রুতামূলক ঐ মামলায় জড়িয়ে ঐ মেয়ে তার নিজ বাড়িতে জোর পূর্বক আটকে রেখেছে মর্মে নওগাঁ আদালতে মিথ্যো মামলা দায়ের করেন।এ বিষয়ে সাপাহার থানার ওসি শামসুল আলম শাহ জানান, প্রতারক মনিরুলের বিরুদ্ধে গ্রাহকের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ সহ তথ্যপ্রযুক্তি আইনে একটি মামলা দায়ের হয়েছে।সে বর্তমানে পালাতক থাকায় আমরা তাকে গ্রেফতার করতে পারিনি।দ্রুত মনিরুল কে গ্রেফতার করা হবে বলেও ওসি জানান।