কুড়িগ্রামে ভূমিদস্যু ফজদ্দি জোর করে মৃত ভাইয়ের সম্পত্তি দখল করে নিয়েছে প্রতিবন্ধী এতিম ভাতিজা দিশেহারা

0
9

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ
কুড়িগ্রাম সদর উপজেলায় ঘোগাদহ ইউনিয়নে কাঁচিচর নামক এলাকায় মৃত- আজিজুল্লার পুত্র মোঃ ফজদ্দি মামুদ অসহায় ভাতিজার পৈত্রিক সম্পত্তি জোর দখল করে রেখেছে। অসহায় এতিম ভাইয়ের পুত্রদেরকে সম্পত্তির ভাগ হতে বঞ্চিত করেছে। এতিম সন্তানেরা সমস্ত দপ্তরে দ্বারে দ্বারে ঘুরছে, পাচ্ছেন না কোন সুরাহা।সম্পদ দখল
অভিযোগে জানা যায়, ফজদ্দি মামুদের ভাই মৃত- ফজল উদ্দিন মারা গেলে তার সন্তানদেরকে ন্যায্য পৈত্রিক পাওনা জমি হতে বঞ্চিত করে। এই ঘটনাটি সোবনদহ মৌজার কাচিচর গ্রামের মৃত- আজিজুল্লা ব্যাপারীর দুই পুত্র ফজল উদ্দিন ও ফজদ্দি মামুদ তারা উভয়েই পৈত্রিক সূত্রে পাওয়া দুই একর করে জমি হঠাৎ করে নাবালক দুটি সন্তান রেখে ফজল উদ্দিন মারা যায়। এই সুযোগে ফজল উদ্দিনের স্ত্রী সুফিয়াকে ফজদ্দি মামুদ বাড়ি থেকে তারিয়ে দেয়। সন্তানের শোকে পিতার বাড়িতে গিয়ে বিধবা সুফিয়া মারা যায়। আর কেউ প্রতিবাদ করার না থাকায় পথের কাটা শিশু ভাতিজা রফিকুলকে প্রাণে মেরে ফেলার চেষ্টা করে ফজদ্দি মামুদ। কিন্তু ওই গ্রামের একজন মহৎ ব্যক্তি এতিম সন্তান দুটিকে বাঁচিয়ে তার নানার বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়। এদের মধ্যে রোগে শোকে সফিকুল ইসলাম নামে সন্তানটি প্রতিবন্ধী হয়ে যায়। অন্য সন্তানটি রফিকুল ১৮ বছর পর পৈত্রিক ভিটায় ফিরে আসলে ফজদ্দি মামুদ ও তার ছেলেরা তাকে প্রাণ নাশের হুমকি দেয়। গ্রামবাসীর সহযোগিতায় রফিকুল বেছে যায়। জমির তথ্য অনুযায়ী যায়, এস.এ ও আর.এস রেকর্ড অনুযায়ী ২ একর জমির মালিক রফিকুলের পিতা মৃত- ফজল উদ্দিন। কিন্তু ভূমিদস্যু, লোভী ফজদ্দি মামুদ কোন শালিস বিচার না মেনে এতিম ভাতিজার সম্পত্তি দখল করে ভোগ করছে। সমাজের সুধিজন ও প্রশাসনের নিকট জমি উদ্ধিারের জন্য হস্তক্ষেপ কামনা করছে রফিকুল।
পৈত্রিক ওয়ারিশ সূত্রে মালিক রফিকুল বলেন- আমরা এতিম। আমাদের এই সম্পত্তি আমার চাচা জোর পূর্বক দখল করে রেখেছে। তাই আইনের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে আমাদের ন্যায্য জমি আমরা যেন ভোগ করতে পারি।